।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ওয়াজেদ আলী নামে এক  কৃষককে কুপিয়ে হত্যার দায়ে আপন পাঁচ ভাইকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সেই সঙ্গে তাদের ২৫ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া এ মামলায় অপর সাত আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুর দেড়টায় কুষ্টিয়া অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত-১ এর বিচারক তাজুল ইসলাম আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় দেন। 

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- দৌলতপুর উপজেলার সালিমপুর তারাগুনিয়া গ্রামের মৃত বকস মণ্ডলের ছেলে জানবার আলী (৬৬), গোলাম মোস্তফা (৬১), আব্দুল মান্নান (৫৬), আলাউদ্দিন (৫৩) এবং আব্দুল হান্নান (৫০)। তাদের মধ্যে জানবার ও গোলাম মোস্তফা শারীরিক প্রতিবন্ধী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সালিমপুরের কৃষক ওয়াজেদ আলীর সঙ্গে জানবার ও তার ভাইদের একটি জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। ২০১৪ সালের ১৪ মার্চ রাত সাড়ে ১২টার দিকে জানবার ও তার ভাইয়েরা বিবাদমান ওই জমি থেকে গম কেটে নিচ্ছিলেন। খবর পেয়ে ওয়াজেদ আলী নিজের ছেলেদের নিয়ে ওই জমিতে গিয়ে তাদের গম কাটতে নিষেধ করেন। এ সময় জানবার ও তার ভাইয়েরা ধারাল অস্ত্র দিয়ে ওয়াজেদ আলীকে কুপিয়ে হত্যা করেন। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে মামলা করেন দৌলতপুর থানায়। মামলায় ১১ জনের নাম উল্লেখ ছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরও ১১/১২ জনকে আসামি করা হয়।

মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ৩১ জানুয়ারি ১২ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দৌলতপুর থানার সেই সময়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফয়সাল হোসেন। 

কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, মামলার শুনানি শেষে অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় পাঁচ ভাইকে এ দণ্ড দেন আদালত। এছাড়া অভিাযোগ প্রমাণ না হওয়ায় বাকি সাত আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। 

রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানান আসামি পক্ষের কৌসুলি অ্যাডভোকেট সুধীর কুমার শর্মা। 

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.