।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুতে আনুষ্ঠানিকভাবে তার জ্যেষ্ঠ সন্তান তৃতীয় চার্লসকে রাজা ঘোষণা করা হয়েছে। এখন থেকে ব্রিটেনের রাজা চার্লস ফিলিপ আর্থার জর্জ।

লন্ডনের স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় সেন্ট জেমস প্রাসাদে অ্যাকসেশন কাউন্সিলে শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা। সেখানে রাজপরিবারের সদস্য ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্যদের উপস্থিতিতে প্রিন্স চার্লসকে দেশের নতুন রাজা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন লর্ড প্রেসিডেন্ট পেনি মর্ডান্ট। রাজা ঘোষণার পরবর্তীতে যেসব আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে তা উল্লেখ করেছেন তিনি।

সেখানে উপস্থিত হন রাজা তৃতীয় চার্লস ও তার স্ত্রী (কুইন কনসর্ট) ক্যামিলা পার্কার। ভাষণে তার প্রয়াত মা রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথকে স্মরণ করেন চার্লস। নিয়ম অনুযায়ী স্কটল্যান্ডের চার্চের নিরাপত্তা রক্ষা সম্পর্কিত একটি শপথে স্বাক্ষর করেন তিনি।

গার্টার কিং অব আর্মস’ প্রাসাদের বারান্দা থেকে নতুন রাজার ঘোষণা পাঠ করা হয়। তারপর ট্রাম্পেটে বাজানো হয় ‘গড সেভ দ্য কিং। লন্ডনের হাইড পার্ক ও টাওয়ার অব লন্ডন থেকে তোপধ্বনি করা হয়।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই অনুষ্ঠানের সাক্ষী হতে ইতোমধ্যে আশপাশে জড়ো হয়েছেন বহু মানুষ। প্রাসাদের বাইরের গেটের দিকে ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। উপস্থিতরা বলছেন, তারা রাজা তৃতীয় চালর্সের আনুষ্ঠানিক শপথ গ্রহণকে কেন্দ্র করেই জড়ো হয়েছেন।

অনুষ্ঠান কাভারের জন্য সাংবাদিকদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। জেমস প্রসাদের অ্যাকসেশন কাউন্সিলে উপস্থিত হন অন্তত ২০০ জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ্যাকসেশন কাউন্সিলে ইতোমধ্যে ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, টনি ব্লেয়ার, থেরেসা মেসহ অনেকেই উপস্থিত হয়েছেন।

বিকেলে জ্যেষ্ঠ আইনপ্রণেতারা পার্লামেন্ট হাউজে রাজা তৃতীয় চার্লসের প্রতি আনুগত্যের শপথ নেবেন।