।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

রাজধানীতে পুরোদমে কর্মব্যস্ততা শুরুর আগের দিন শনিবার কমলাপুর স্টেশন ছেড়েছে সাতটি ট্রেন। এরমধ্যে উত্তরবঙ্গগামী ৪টি ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় ঘটেছে।

শনিবার (১৬ জুলাই) সরেজমিনে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি ট্রেনই অতিরিক্ত যাত্রীসহ কমলাপুর স্টেশনে প্রবেশ করছে। অন্যদিকে ঈদের পরে এখনও ঢাকা ছাড়ছেন অনেকে। কিন্তু অধিকাংশ ট্রেনে শিডিউল বিপর্যয় হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে যাত্রীরা।

নীলসাগর এক্সপ্রেস সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে কমলাপুর ছাড়ার কথা থাকলেও পৌনে ১০টাতেও স্টেশনে পৌঁছায়নি। এছাড়া রংপুর এক্সপ্রেস ও একতা এক্সপ্রেস দেরিতে ছাড়বে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

একতা এক্সপ্রেসের যাত্রী কামাল উদ্দিন বলেন, একতা ট্রেনটি যখন দিনাজপুর পর্যন্ত যেতো তখন শিডিউল বিপর্যয় হতো না। কিন্তু রেলমন্ত্রী তার নিজ জেলা পঞ্চগড় স্টেশনে (বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম স্টেশন) ট্রেনটি নিয়ে যাওয়ার পর থেকে দীর্ঘ যাত্রার কারণে শিডিউল বিপর্যয় ঘটে।

আর সবচেয়ে বেশি দেরি করেছে পঞ্চগড়গামী পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনটি। ট্রেনটি গতকাল (শুক্রবার) রাত ১০ টা ৪৫ মিনিটে ছাড়ার কথা থাকলেও ট্রেনটি দেরিতে পৌঁছানোয় কমলাপুর স্টেশন ছেড়েছে সকাল ৬ টার দিকে।

ঈদের পরে ঢাকা ছেড়েছিলেন ডেন্টাল কলেজ শিক্ষার্থী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, ট্রেন ছাড়ার কথা ছিল গতকাল রাত ১০ টা ৪৫ মিনিটে, আর ট্রেন ছেড়েছে সকাল ৬ টার দিকে। এতো ভোগান্তি যে কল্পনা করা যায় না।

ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় নিয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার জানান, চিলাহাটিগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস, পঞ্চগড়গামী একতা এক্সপ্রেস এবং রংপুর এক্সপ্রেস ছাড়তে দেরি হবে।

তিনি আরও বলেন, জয়পুরহাটে একতা এক্সপ্রেসের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। সেটির কারণে নীলসাগর এক্সপ্রেস দেরি হচ্ছে।

মাসুদ সারওয়ার বলেন, শনিবার ৩৭ জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন চলবে। এর মধ্যে ৯টা ৪৪ মিনিট পর্যন্ত ১৫টি ট্রেন ছেড়ে যাবে।