।। বিশেষ প্রতিনিধি, রাজশাহী ।।

ঋণ জালিয়াতির একটি মামলায় আদালত জেলহাজতে পাঠিয়েছেন দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পগ্রুপ আমান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও দুই পরিচালককে। গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত একটি ট্রেডিং প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ নিতে দায়বদ্ধ রাখা সম্পত্তি অন্যত্র হস্তান্তরের মাধ্যমে যমুনা ব্যাংকের প্রায় ৬৮ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সোমবার রাজশাহী অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালত এই আদেশ দেন।

মামলার যে তিন আসামিকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে তারা হলেন আমান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল ইসলাম, দুই পরিচালক শফিকুল ইসলাম ও তৌফিকুল ইসলাম। রাজশাহী থেকে শুরু করে এই তিন সহোদর আমান গ্রুপের ব্যবসা সারাদেশে প্রসারিত করেন।

আদালত ও ব্যাংক সূত্র জানায়, ২০০৭ সালে আমান গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত ট্রেডিং প্রতিষ্ঠান আরএসঅ্যান্ডটি ইন্টারন্যাশনালের নামে যমুনা ব্যাংকের রাজশাহী শাখা থেকে ৪২ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করা হয়। এই ঋণ গ্রহণের জন্য রাজশাহীর পবা উপজেলার নারিকেলবাড়ি মৌজায় দশমিক ৩৩০০ একর ও ললিতাহার মৌজায় দশমিক ২৯০০ একর জমি ব্যাংকে দায়বদ্ধ রাখেন ঋণগ্রহীতা। ২০১০ সালে আরএসঅ্যান্ডটি ইন্টারন্যাশনালের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১২৯ কোটি টাকা ঋণ নবায়ণ ও বর্ধিত করা হয়। কিন্তু এরপর নির্ধারিত সময়ে সেই ঋণ পরিশোধ করা হয়নি। উল্টো দায়বদ্ধ রাখা সম্পত্তি তথ্য গোপন করে অন্য প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়। ২০১৯ সালের ২৫ মে যমুনা ব্যাংকের পক্ষ থেকে রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে আমান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল ইসলাম, দুই পরিচালক শফিকুল ইসলাম ও তৌফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৬/৪২০ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়।

মামলার এজাহারে যমুনা ব্যাংক অভিযোগ করে, তিন আসামির এই জালিয়াতির কারণে ৬৮ কোটি ৮৭ লাখ ৪০ হাজার ৮০৮ টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ব্যাংকটি।

এই মামলায় গত ১১ এপ্রিল তিন আসামী উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন নেন। সোমবার নিম্ন আদালতে তাদের হাজিরার দিন ছিলো। এদিন তাদের পক্ষে জামিন আবেদন করা হয়। রাজশাহী অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে শুনানি শেষে আদালত জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তিন আসামিকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। আদেশে আদালত মামলায় আনীত অভিযোগকে জামিন অযোগ্য অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করেন। এছাড়া আসামিরা আপোসের কথা বললেও তা সুনির্দিষ্ট নয় বলে আদালত মত দেন।