।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

রাজশাহী নগরীতে অভিযান চালিয়ে একটি গুদামে থেকে আরও ১১৪ ব্যারেলে ২৩ হাজার ২৫৮ লিটার ভোজ্যতেল উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (১১ মে) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের কর্মকর্তারা এই অভিযান চালান। অভিযানের নেতৃত্ব দেন সংস্থাটির রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক হাসান আল মারুফ।

জানা যায়, বুধবার (১১ মে) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে নগরীর সাহেব বাজার আরডিএ মার্কেটের মজিবুর স্টোর নামে একটি গুদাম থেকে ৭৩ ব্যারেলে ১৪ হাজার ৮৯৪ লিটার সয়াবিন তেল এবং ৪১ ব্যারেলে ৮ হাজার ৩৬৪ লিটার পামওয়েল তেল জব্দ করে। অবৈধভাবে এই ভোজ্যতেল মজুত করার অপরাধে গুদামের মালিক মজিবুর রহমানকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

জাতীয় ভোক্তা অধিদফতর রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক হাসান আল মারুফ বলেন, ‘আগে থেকেই আমাদের কাছে তথ্য ছিল মজিবুর স্টোরে ভোজ্যতেল মজুত রাখা হয়েছে। প্রথমে তারা তেল রাখার বিষয়টি অস্বীকার করছিল। পরে আমরা গুদামে গিয়ে তেল পাই। এ জন্য মজিবুর স্টোরকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’

এর আগের দিন মঙ্গলবার (১০ মে) অবৈধভাবে সয়াবিন তেল মজুত ও নির্ধারিত দামের চেয়ে অতিরিক্ত দামে বিক্রি করার অপরাধে রাজশাহী নগরীর তিন ব্যবসায়ীকে ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছিল জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। এ ছাড়াও পুঠিয়ার উপজেলার বানেশ্বর বাজারে চারটি গুদামে অভিযান চালিয়ে ৯২ হাজার ৬১৬ লিটার সয়াবিন ও পামওয়েল তেল জব্দ এবং পাঁচ জনকে আটক করেছিল রাজশাহী জেলা পুলিশ। আগের দর অনুযায়ী যার বাজারমূল্য এক কোটি ২২ লাখ ৮৬ হাজার ৯২০ টাকা। আর রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বগদামারিতে একটি গুদামে অভিযান চালিয়ে ১০১ ব্যারেল সয়াবিন তেল উদ্ধার করা হয়েছিল। এই ঘটনায় ব্যবসায়ী মাজদার আলীকে আটক করা হয়।

সোমবার (৯ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত জেলা পুলিশ অভিযান চালিয়ে রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুর বাজারের দুটি গুদাম থেকে প্রায় ২৭ হাজার লিটার ভোজ্যতেল জব্দ করেছিল। জব্দ তেলের মধ্যে ১৯ হাজার ১৭৬ লিটার সয়াবিন এবং ৭ হাজার ৫৪৮ লিটার সরিষার তেল ছিল বলে জানিয়েছিল পুলিশ। এ সময় গ্রেফতার করা হয়েছিল তেলের মালিক ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম স্বপনকে (৪০)।