।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

রাজশাহীতে আজও রুদ্রমূর্তি ধারণ করে আছে প্রকৃতি! সকাল থেকেই আগুন ঝরাচ্ছে সূর্য। গাছের সবুজ পাতাগুলো যেন এক চুলও নড়ছে না।

তীব্র তাপে উষ্ণ হয়ে উঠেছে বায়ুমণ্ডল। প্রকৃতি যেন তপ্ত নিশ্বাস ছাড়ছে। ঘরে কিংবা বাইরে কোথাও এক চিলতে স্বস্তি নেই। রমজান মাসে টানা তাপপ্রবাহে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা যেন একেবারেই অচল হয়ে পড়েছে। 

দুপুর গড়াতেই প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে মাঠ-ঘাট ফাঁকা হয়ে পড়ছে। পথচারীরা গাছের ছায়া পেলেই একটু বিশ্রাম নিয়ে নিচ্ছেন। মানুষের পাশাপাশি পশু-পাখিরাও হাঁসফাঁস করছে।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক রাজীব খান বলেন, সামান্য বিরতি দিয়ে থার্মোমিটারে তাপমাত্রার পারদ আবারও ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়েছে। রোববার (২৪ এপ্রিল) বিকেল ৩টায় রাজশাহীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৪০ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগের দিন শনিবার (২৩ এপ্রিল) ছিল ৩৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর আজ বিকেল ৪টায় রাজশাহীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা আবারও রেকর্ড করা হয়েছে ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে রাজশাহীতে তাপমাত্রার পারদ ৪১ ডিগ্রি পার হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এর মধ্যে ৮ বছর পর ১৫ এপ্রিল রাজশাহীতে তাপমাত্রার অতীতের রেকর্ড ভাঙে। ওইদিন বিকেল ৩টায় রাজশাহীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয় ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  এর আগে, ২০১৪ সালের ২৫ এপ্রিল রাজশাহীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  তাই দেশের সর্বোচ্চ এ তাপমাত্রায় পদ্মাপাড়ের রাজশাহীর জনজীবন অসহনীয় হয়ে পড়েছে।

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের সহকারী আবহাওয়া কর্মকর্তা আবহাওয়াবিদ মো. আবু সাঈদ মিয়া বলেন, স্থানীয়ভাবে যদি ‘বজ্রমেঘ’ তৈরি হয় তাহলেই কেবল বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা দেখা দেবে। আর যদি এটা লোকালি তৈরি না হয় তাহলে বৃষ্টি হবে না। আর এখন বৃষ্টি না হলে তাপমাত্রা আপাতত তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশপাশেই থাকবে। এদিকে আবহাওয়া অধিপ্তরের পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। ফলে ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দুই/এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

তাপপ্রবাহের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী, পাবনা, যশোর এবং চুয়াডাঙ্গা জেলায় তীব্র তাপপ্রবাহ, রংপুর, দিনাজপুর, নিলফামারী ও পটুয়াখালী জেলাসহ ঢাকা বিভাগ, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের অবশিষ্টাংশের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। ফলে সারা দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।