।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

নিখোঁজের ছয় মাস পর মানসিক ভারসাম্যহীন এক বৃদ্ধার অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার ভাড়োড়া গ্রাম থেকে মরদেহটি উদ্ধার হয়।

মৃত বৃদ্ধার নাম শেরজান (৯৩)। তিনি একই উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নের ভাড়োড়া গ্রামের মৃত নূর আলী মণ্ডলের স্ত্রী।

রাজশাহীর পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার সকালে ভাড়োড়া গ্রামের একটি নালায় কিছু জেলে মাছ ধরছিলেন।  এ সময় জেলেদের জালে অর্ধগলিত ওই মরদেহটি উঠে আসে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। 

তবে অর্ধগলিত ওই মরদেহ দেখে পুলিশ তার পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারছে না। যদিও মৃত বৃদ্ধার বড় ছেলে লুৎফর হোসেন জানিয়েছেন, এটা তার মায়েরই মরদেহ। তার মা প্রায় ছয় মাস আগে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। অনেক খুঁজেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বৃহস্পতিবার সকালে মরদেহ উদ্ধারের খবর শুনে তিনি ঘটনাস্থলে যান এবং গলার মালা ও হাতের চুড়ি দেখে তার মাকে শনাক্ত করেন।

ওসি সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, ওই বৃদ্ধা নিখোঁজ হওয়ার পর পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ থানায় কোনো অভিযোগ করেননি। তাই ঘটনাটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। মরদেহের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর ঘটনাটি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যাবে। আপাতত এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা হবে বলে জানান পুঠিয়া থানার এই পুলিশ কর্মকর্তা।