।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

রাজশাহীতে সেচের পানি না পেয়ে দুই কৃষকের আত্মহত্যার ঘটনায় চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়। কমিটিকে আগামী ৭ কর্ম দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) সচিবালয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) রিভিউ মিটিং এ সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কৃষিসচিব মো. ছায়েদুল ইসলাম এ কথা জানান। 

কৃষিসচিব বলেন, আমি কৃষকদের সঙ্গে এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গেও কথা বলেছি। একইসঙ্গে আমাদের একজন যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে বিএসডিএর একজন কর্মকর্তা, বিএডিসি এর কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসকের কর্মকর্তাসহ মোট চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছি। কমিটি এ মুহূর্তে মাঠে চলে গেছেন। তারা তদন্ত করছেন, পাশাপাশি পুলিশও তদন্ত করছেন। 

তিনি বলেন, প্রশাসনিক তদন্ত আমরা আমাদের মতো করে করবো। আর ফৌজদারি যে বিষয়টি পুলিশ সে আঙ্গিকে করবে। আমরা এ বিষয়ে সচেতন আছি। যদি কারো কোনো গাফলতি থাকবে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেব। 

কৃষি মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (সার ব্যবস্থাপনা ও মনিটরিং) আবু জুবাইর হোসেন বাবুলকে আহ্বায়ক করে গঠিত তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসনের একজন প্রতিনিধি, বিএডিসি নাটোর জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী সাজ্জাদ হোসেন ও বিএডিসি নওগাঁ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী নো. সমশের আলী। এই কমিটিকে আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। 

জানা যায়, গত ২৩ মার্চ রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার নিমঘটু গ্রামের কৃষক অভিনাথ মার্ডি ও তার চাচাতো ভাই রবি মার্ডি বিষপানে আত্মহত্যা করেন। তাদের মৃত্যুর পর ২৫ মার্চ রাতে অভিনাথ মার্ডির স্ত্রী রোজিনা হেমরম বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচণায় একটি মামলা করেন। 

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ধান ক্ষেতে সেচের পানি না পেয়ে ২৩ মার্চ বিকেলে কৃষক অভিনাথ মার্ডি ও তার চাচাতো ভাই রবি মার্ডি বিষপান করেন। ওইদিন রাত ৯টার দিকে অভিনাথ মার্ডি বাড়িতেই মারা যান।