।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী।।

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) সাম্প্রতিক দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে তদন্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রোববার ঢাকায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি রুয়েটের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে সংবাদমাধ্যমে কিছু সংবাদ প্রকাশিত হয়। সবশেষে রোববার ঢাকার প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম প্রথম আলো প্রথম পাতায় গুরুত্বের সঙ্গে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে, যেখানে প্রতিষ্ঠানটির উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম সেখের বিরুদ্ধে নিয়োগে গুরুতর অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির তথ্য তুলে ধরা হয়। স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বিষয়গুলো আলোচনায় উঠে আসে।

জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদীয় কমিটির ১৫তম বৈঠকে সভাপতি আফছারুল আমীন এমপির সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, ফজলে হোসেন বাদশা এমপি, আব্দুল কুদ্দুস এমপি, এম এ মতিনসহ কমিটির অন্য সদস্যরা।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, সরকার কোনোভাবেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে অনিয়ম ও দুর্নীতি সহ্য করবে না- এমন অবস্থান এর আগে অনেক ঘটনায় স্পষ্ট করা হয়েছে। তারপরেও এসব অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে উঠছে, তাদের ব্যাপারে তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কমিটির বৈঠকে রুয়েটের নিয়োগ ছাড়াও প্রতিষ্ঠানটির বেশ কিছু দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে। বিষয়গুলো নিয়ে বেশিরভাগ সদস্য ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সেই বৈঠকে আলোচনা শেষেই রুয়েট নিয়ে সবিস্তার তদন্তের ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

জানতে চাইলে কমিটির জ্যেষ্ঠ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেন, বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্তের সিদ্ধান্ত হয়েছে। তদন্তের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, নিয়োগ প্রক্রিয়াটি শুরুর দিকে বিষয়টি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে উত্তরকাল, যেখানে নিয়োগে নানামুখি তদবিরের বিষয় তুলে ধরা হয়।