।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

এবার চৈত্রের শুরুতেই দেখা দিয়েছে তাপপ্রবাহ। বর্তমানে যা ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে। আভাস রয়েছে আরো বাড়ার।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বাতাসের উপস্থিতি থাকায় তাপপ্রবাহ এখনো তীব্রতা লাভ করেনি। তবে তা মাঝারি আকার ধারণ করতে পারে।

রাজনীতিতে মৃদু তাপপ্রবাহেই জনজীবন দুর্বিষহ হওয়ার উপক্রম। অনেককেই রাস্তায় ছাতা নিয়ে বের হতে দেখা যাচ্ছে। আবার রাস্তায় নেমে পড়েছেন বিভিন্ন শবরত বিক্রেতারা। মিলছে আখের রসও।

আবহাওয়া অফিস বলছে, সাগরের পানির তাপমাত্রাও বেড়ে গেছে। ফলে সৃষ্টি হয়েছে লঘুচাপের। এটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

নিরক্ষীয় ভারত মহাসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া লঘুচাপটি বর্তমানে দক্ষিণ

বঙ্গোপসাগরের মধ্যভাগে অবস্থান করছে। পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ অবস্থান করছে হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন এলাকায়।

এই অবস্থায় সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। বাড়বে দিন ও রাতের তাপমাত্রা।

এছাড়া ঢাকা, ফরিদপুর, রাজশাহী, পাবনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, রাঙ্গামাটি, চাঁদপুর ও সিলেট জেলাসহ খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে।

মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং সেটিও অব্যাহত থাকতে পারে। ঢাকায় উত্তর /উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ রয়েছে ৮-১২ কি.মি.।

আবহাওয়াবিদ খো: হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, শনিবার নাগাদ আবহাওয়ার উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই।

বর্ধিত ৫ (পাঁচ) দিনের আবহাওয়া সামান্য পরিবর্তন হতে পারে।

বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) দুপুর ১২ টা থেকে আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে, ৩৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে তেঁতুলিয়ায়, ১৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যথাক্রমে ৩৬ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও ২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।