।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের যে মজুদ দেশে আছে, তা দিয়ে ‘অনায়াসে’ রোজার মাস পার করা যাবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

আতঙ্কিত হয়ে পণ্য মজুদ করে বাজার অস্থিতিশীল না করতে সাধারণ ক্রেতাদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস উপলক্ষে সোমবার মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ বিষয়ে কথা বলেন মন্ত্রী।

সরবরাহ সঙ্কটের কথা বলে সয়াবিন তেলসহ আরও কয়েকটি নিত্যপণ্যে সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দাম রাখছেন বিক্রেতারা। এ অবস্থায় রোজার সময়ে পরিস্থিতি কেমন হবে সেটাই জানতে চেয়েছিলেন সাংবাদিকরা।

বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, “নাই নাই ভাবটা আসছে। কারণ, কেউ কেউ মজুদ করেছে। দেশে যথেষ্ট পরিমাণ মজুদ আছে। টিসিবিও এক কোটি মানুষকে দিতে তৈরি হয়েছে। আপানারা এই মেসেজটা দেন।

“পণ্যের দাম বাড়বে না সেই নিশ্চিয়তার চেয়ে বলতে পারি, ভ্যাট কমালে পণ্যের দাম কমতেও পারে। আমরা যে প্রাইসটা ঠিক করেছি, সেটা নিশ্চিত করতে চাই। বাংলাদেশে রমজান এলে তারা সুযোগটা নেয়। অথচ বিদেশে পূজা-পার্বণে দাম কমে।”

অবশ্য ইউক্রেইনে যুদ্ধপরিস্থিতির কারণে সরবরাহ ব্যবস্থা কিছুটা বিঘ্নিত হচ্ছে বলেও জানান টিপু মুনশি।

“ভয় পাচ্ছি যুদ্ধটা কোথায় গিয়ে ঠেকে। কারণ তেলটা শেষ কথা নয়। গমের বিষয়ও রয়েছে। আবার সুইফট থেকে রাশিয়াকে বের করে দেওয়া হয়েছে। গম আসে ইউক্রেইন-রাশিয়া থেকে।” 

ভ্যাট কমানোর পর পণ্যের মূল্যে কতটা প্রভাব পড়বে, তা ঘোষণা করা হবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “এই মুহূর্তে ঠিক বলতে পারব না। এসআরও জারি হওয়ার পর বলা যাবে। আমরা যেটা নির্ধারণ করে দিলাম, সেই দামটা তাদের নিতে হবে। তারা চাইলে কমও নিতে পারে।

“কিন্তু বেশি নিলে আমরা ব্যবস্থা নেব এবং সেটা নেওয়া শুরু হয়েছে। আমরা সব রকম অ্যাকশনে যাচ্ছি ওই প্রাইস ধরে। বিশ্বাবজারে বাড়লেও সেটা আমরা বিবেচনায় নেব না। বেশি দামের পণ্য দেশে ঢুকলে পরে আমরা নতুন মূল্য বিবেচনায় নেব।“

বাজার পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে- সেই প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, “আন্তর্জাতিক বাজার নিয়ে আমাদের কিছু বলার নেই। কিন্তু আমরা যেটা পারি টিসিবির মাধ্যমে সরবরাহ বাড়াতে, সেটা আমরা করব।”