।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

করোনার সংক্রমণ কমে আসায় মাধ্যমিক স্তরে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান এ মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে পুরোদমে শুরু হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শুক্রবার (৪ মার্চ) রাজধানীর বনানী ক্লাবে ‘স্টাডি ইন ইন্ডিয়া’ এডুকেশন ফেয়ার উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আশা করছি, এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে মাধ্যমিকে পুরোদমে ক্লাস শুরু করতে পারবো। আমরা তো ধারাবাহিক মূল্যায়নে যাচ্ছি। শিক্ষার্থীদের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট দরকার হলে দেবো।’

চলতি বছরের শুরুর দিকে নতুন করে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি ও নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে বন্ধ ঘোষণা করা হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রায় এক মাস বন্ধ থাকার পর গত ২২ ফেব্রুয়ারি মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হয়। গত বুধবার থেকে প্রাথমিকেও শুরু হয়েছে শ্রেণি পাঠদান।

মাধ্যমিকে এসএসসি পরীক্ষার্থী ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা সপ্তাহে প্রতিদিন ক্লাস করলেও সব বিষয়ের ক্লাস হচ্ছে না তাদের। এসএসসি পরীক্ষার্থীদের চারটি এবং দশমে তিনটি বিষয়ে ক্লাস হচ্ছে। এছাড়া অষ্টম ও নবম শ্রেণিতে সপ্তাহে দুই দিন তিন বিষয়ে এবং ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে একদিন তিন বিষয়ের ক্লাস হচ্ছে।

খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে মাধ্যমিকের পাঠদান স্বাভাবিক পর্যায়ে চলে আসবে আশা প্রকাশ করেন শিক্ষামন্ত্রী। এ সময় তিনি ‘ব্লান্ডেড লার্নিং’ বিষয়েও কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমরা ন্যাশনাল পলিসি করছি। এ মাসের ২৬ তারিখে প্রধানমন্ত্রীর হাতে দেবো। তারপর কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায় তা করা হবে।’

আর সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে মেডিক্যালে ভর্তির বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘মেডিক্যালের ভর্তি পরীক্ষা পুনর্বিন্যাস করে ভর্তি পরীক্ষাটা হওয়া উচিত। বিএমডিসির সঙ্গে কথা বলেছি, আবারও বলবো।’

এর আগে ডা. দীপু মনি ভারতের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টল পরিদর্শন করেন। স্টলগুলোতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে সংশ্লিষ্টরা সে বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পরিবেশ, সুযোগ-সুবিধা ইত্যাদি বিষয় তুলে ধরেন। এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‌‘ভারতের শিক্ষার্থীরা যদি বাংলাদেশ পড়তে আসে আর বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা যদি ভারতে পড়তে যায়, তাতে দুই দেশের জ্ঞান বিনিময়ের পাশাপাশি সম্পর্ক আরও জোরদার হবে।’