।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ২৮ হাজার ৮১৯ জনের।

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন চার হাজার ৮৩৮ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ নয় হাজার ৬৬৪ জন। মৃত ২৮ জনের মধ্যে রয়েছেন পুরুষ ২০ জন ও আটজন নারী।   

রোববার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৩ হাজার ৮৫৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৫৫ জন। সারাদেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৮৭৪টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে। এসব ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ৩২ হাজার ৫০৩টি। মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩২ হাজার ৫৭৪টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১ কোটি ২৯ লাখ ৯৫ হাজার ৯৮টি।  

এতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার চার দশমিক ৬১ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৮৫ শনাক্ত এবং শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৭ দশমিক ৯০ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫১ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় মৃত ২৪ জনের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিভাগে ১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে দুইজন, রাজশাহী বিভাগে চারজন, খুলনা বিভাগে ছয়জন, বরিশাল বিভাগে একজন, সিলেট বিভাগে একজন, রংপুর বিভাগে দুইজন। এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ২৩ জন। বেসরকারি হাসপাতালে পাঁচজন মারা গেছেন।

মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছেন একজন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে দুইজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে একজন, ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে একজন ও ১০০ বছরের বেশি বয়সের একজন মারা গেছেন।      

এতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন দুই হাজার ১২৯ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন চার হাজার ৪৫ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ১৪ লাখ ৬ হাজার ৩৭১ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১৩ লাখ ১৫ হাজার ৫১২ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৮৯ হাজার ৮৫৯ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।