।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

ভারতে সরকারি হিসাবে কোভিডে মৃত্যু ৫ লাখ ছাড়ানোর তথ্য দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। যদিও অনেক গবেষকের ধারণা, দেশটি গতবছরই মৃত্যুর এ সংখ্যা অতিক্রম করেছিল, কিন্তু ভুলভাল জরিপ ও পশ্চিমাঞ্চলে অগণিত মৃত্যুর তথ্য অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় প্রকৃত সংখ্যা উঠে আসেনি।

বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে কোভিডে মৃত্যুতে চতুর্থ স্থানে থাকা ভারত গত বছরের জুলাইয়েই সরকারি হিসাবে ৪ লাখ মৃত্যু রেকর্ড করেছিল; সেসময় দেশটি করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরনের দাপটে দিশেহারা দিন পার করেছে।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, সরকারি হিসাবে ভারতে কোভিডে যত মৃত্যু, প্রকৃত সংখ্যা তার চেয়ে অনেক অনেক বেশি।

“বিজ্ঞান জার্নালে প্রকাশিত আমাদের গবেষণায় ২০২১ এর মাঝামাঝিই ভারতে কোভিডে আনুমানিক ৩০ লাখ মৃত্যুর কথা বলা হয়েছে, এক্ষেত্রে তিনটি আলাদা ডাটাবেস ব্যবহার করেছি আমরা,” বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এমনটাই বলেছেন গবেষণা প্রতিবেদনটির অন্যতম লেখক আহমেদাবাদের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্টের সহকারী অধ্যাপক চিন্ময় টুম্বে।

গত মাসে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ভারত সরকার গবেষকদের ওই প্রতিবেদনকে উড়িয়ে দিয়েছে। বলেছে, জন্ম ও মৃত্যু অন্তর্ভুক্ত করার শক্তিশালী ও কার্যকর ব্যবস্থাপনা রয়েছে তাদের।

ভারতের রাজ্যগুলো মূলত তাদের জেলাগুলোর কাছ থেকে কোভিডে মৃত্যুর তথ্য সংগ্রহ করে থাকে। গত কয়েক মাসে বেশ কয়েকটি রাজ্য তাদের কোভিডে মৃত্যুর তথ্যের সংশোধনী দিয়েছে, এর মধ্যে কয়েকটি রাজ্য সর্বোচ্চ আদালতের চাপে পড়ে এমনটা করতে বাধ্য হয়েছে। তবে বেশিরভাগ সময়ই কর্তৃপক্ষ দেরিতে নিবন্ধন ও অন্যান্য প্রশাসনিক ত্রুটির কথা বলে দায় সারে।

ভারত এখন করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের দাপটে সৃষ্ট তৃতীয় ঢেউ অতিক্রম করছে। অতি সংক্রামক এই ধরনটি এখন ভারতজুড়ে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে বলে ধারণা শীর্ষ সংক্রামক বিশেষজ্ঞদের; যদিও আক্রান্তদের বেশিরভাগেরই উপসর্গ মৃদু, বলছেন কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মকর্তারা।