।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

রাজশাহীতে আবারও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা বিভাগটি এর মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রেড জোনে রয়েছে।

সবশেষ শনিবার (২২ জানুয়ারি) নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৪ দশমিক ১৯ শতাংশ। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তির বয়স ৫০ বছরের মধ্যে। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বাসিন্দা।

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তির পর ওই ব্যক্তির শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি ঘটে। পরে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই রোগী মারা যান। তার মরদেহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করতে নির্দেশনা দিয়েছে রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি। তবে উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১০৪ শয্যার বিপরীতে রোববার সকাল ৯টা পর্যন্ত ৪২ জন রোগী ভর্তি ছিলেন। এরমধ্যে আক্রান্ত রোগী রয়েছেন ৩০ জন। উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ১০ জন। আর করোনা ধরা পড়েনি এমন রোগী রয়েছেন দুইজন। এছাড়া মোট ৪২ জন রোগীর মধ্যে রাজশাহী জেলার ২৪ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের চারজন, নওগাঁর তিনজন, নাটোরের একজন, পাবনার পাঁচজন, কুষ্টিয়ার তিনজন, চুয়াডাঙ্গার একজন এবং জয়পুরহাট জেলার একজন রোগী রয়েছেন।

এদিকে, শনিবার রামেক হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ৯১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ৩৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। আর রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে ২৭৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে করোনা ধরা পড়ে ৮৮ জনের শরীরে। সবমিলিয়ে এদিন নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রাজশাহীতে রেকর্ড করোনা শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৪৪ দশমিক ১৯ শতাংশে।

রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের সহকারী পরিচালক নাজমা আক্তার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) বলেন, করোনা সংক্রমণ ক্রমাগত হারে বাড়ছে। মহামারি শুরুর পর শনাক্তের হারে রাজশাহী আবারও উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। এজন্য সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। মাস্ক ছাড়া কোনোভাবেই বাইরে বের হওয়া যাবে না। যতদূর সম্ভব জনবহুল এলাকা ও মানুষের ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। প্রতিষ্ঠান বা বাড়ির মধ্যে কারো উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত নমুনা পরীক্ষা করাতে হবে।