grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে বেশ কয়েকবার পিছিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২০-২১ সেশনের অনার্স প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। সবশেষ গত ১৬ জুলাই গৃহীত সিদ্ধান্তের আলোকে আজ শুক্রবার (১ অক্টোবর) সকাল ১১টায় ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে ২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমান উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ‘ভর্তিযুদ্ধ’ শুরু হয়েছে।

পরীক্ষায় অংশ নিতে আজ শুক্রবার সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করেন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড়। তবে করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে এবার পরীক্ষা কেন্দ্র এলাকায় অভিভাবকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। জনসাধারণের প্রবেশ ঠেকাতে ও সার্বিক শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য রয়েছে আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী।

পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের জন্য সহায়তা করার জন্য রয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও স্বেচ্ছাসেবী ছাত্র সংগঠনগুলোর ‘হেল্পিং বুথ’। এছাড়াও জেলা সংগঠনগুলোও শিক্ষার্থীদের সহায়তায় স্থাপন করেছে ‘হেল্পিং বুথ’।

পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশপথে রয়েছে তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঢোকানো হয়েছে কেন্দ্রে। কেন্দ্রগুলো পরিদর্শনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর এ কে এম গোলাম রাব্বানী সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘আমরা সামাজিক দূরত্ব শতভাগ নিশ্চিত করে পরীক্ষা নেয়ার কথা বলেছি। তার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি শতভাগ নিশ্চিত করা আমাদের সবার ব্যক্তিগত সচেতনতার ওপর নির্ভর করে।

এবার পাঁচটি ইউনিটে ৭১৪৮টি আসনের বিপরীতে মোট আবেদন জমা পড়েছে ৩ লাখ ২৪ হাজার ৩৪০টি। প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ৪৫ হাজার ৩৭ জন। যার মধ্যে ‘ক’ ইউনিটে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ৬৪ দশমিক ৯৯ জন, ‘খ’ ইউনিটে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ২০ দশমিক ০৩ জন, ‘গ’ ইউনিটে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ২১ দশমিক ৯০ জন, ‘ঘ’ ইউনিটে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ৭৩ দশমিক ৮১ জন এবং ‘চ’ ইউনিটে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ১১৪ দশমিক ৭৯ জন।

করোনার কারণে এবারই ক্যাম্পাসের বাইরে দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতেও ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ঢাকার বাইরের কেন্দ্রগুলো হলো- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি), চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি), ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি), খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুবি), সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি), বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ও রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রক্টর এ কে এম গোলাম রাব্বানী বলেন, আমরা আশা করি, সম্পূর্ণ সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন হবে। প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে গোয়েন্দা বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী রয়েছেন। আর যদি কোনোরকম অসদুপায় অবলম্বন করার খবর পান আমাদের অবশ্যই জানাবেন, আমরা যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত নেবো।

এসময় তিনি কোনোরকম গুজবে কান না দেয়ারও আহ্বান জানান।