grand river view

।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

রাজশাহী নগরের একটি ক্লিনিকে নবজাতক শিশু ও প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্টদের শাস্তি দাবি করেছে ভুক্তভোগীর পরিবার। 

শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নগরের একটি রেস্তোরাঁয় সংবাদ সম্মেলন করা হয়। অবহেলায় নবজাতক ও মায়ের মৃত্যু হয়েছে বলে সেখানে দাবি করা হয়।

এর আগে গত ১১ জুন নগরের লক্ষ্মীপুর এলাকায় অবস্থিত মাইক্রোপ্যাথ ক্লিনিকে সুখি বেগম (৩৫) নামের ওই নারী মারা যান। সুখির মৃত্যুর আগে তার নবজাতক শিশুও মারা যায়। 

সুখি বেগমের বাড়ি রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলায়। মা ও নবজাতকের মৃত্যুর পর রোগীর স্বজনদের ভয়ভীতি দেখিয়ে ‘কোনো অভিযোগ নেই’ লেখা একটি স্বাক্ষর করিয়ে মরদেহ দ্রুত বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়।

পরে ১৫ জুলাই অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগ তুলে মারা যাওয়া সুখি বেগমের ছোট ভাই মিজানুর রহমান আদালতে মামলা করেন। এতে ক্লিনিকের স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শারমীন সেলিনা সুলতানা, অ্যানেসথেসিয়ালোজিস্ট ডা. রাশিদুল ইসলাম, ক্লিনিকের ব্যবস্থাপক বুলবুল, ওটি বয় মামুন এবং দালাল আবদুল খালেককে আসামি করা হয়। আদালত ওই মামলা গ্রহণ করে তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) দায়িত্ব দেন।

মামলার সঠিক তদন্ত এবং অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে বাদী মিজানুর রহমান শনিবার এই সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ১০ জুন ডাক্তার দেখানোর জন্য তার বোনকে নগরের আরেকটি ক্লিনিকে নেয়া হয়েছিল। সেখানে মাইক্রোপ্যাথের দালাল মামুন ও খালেক ভালো চিকিৎসার কথা বলে মাইক্রোপ্যাথে নিয়ে যান।

এরপর কোনো রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই সুখির সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারের তোড়জোড় শুরু করা হয়। সিজারের কিছুক্ষণ পর নবজাতক শিশু মারা যায়। এর কিছুক্ষণ পর মারা যান সুখি। ভুল চিকিৎসা ও অবহেলায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। এটি হত্যার শামিল বলে অভিযোগ করেন মিজানুর। তিনি বলেন, টাকার নেশায় অপ্রয়োজনীয় সিজার করে সুখি ও তার সন্তানকে মেরে ফেলা হয়েছে।

মিজানুর অভিযোগ করেন, ঘটনার দিন তাদের ক্লিনিকে একরকম জিম্মি করে ভয়ভীতি দেখিয়ে ‘কোনো অভিযোগ নেই’ লেখা কাগজে সই নেয়া হয়েছে। মরদেহ নিয়ে যাওয়ার পর লকডাউন এবং করোনার কারণে আদালতে মামলা করতে দেরি হয়েছে। তিনি মামলার সঠিক তদন্ত এবং অভিযুক্তদের শাস্তি দাবি করেন। 

মিজানুর বলেন, শাস্তি হলে এমন ঘটনা আর ঘটবে না। তা না হলে ক্লিনিকটিতে এ ধরনের ঘটনা ঘটতেই থাকবে।

এ বিষয়ে ক্লিনিকের ব্যবস্থাপক মো. বুলবুল বলেন, ‘সেদিনই ঘটনার মীমাংসা হয়ে গেছে। এরপর তারা কেন মামলা, সংবাদ সম্মেলন করছে তা বুঝতে পারছি না।’

চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, ‘কোনো ডাক্তারই চায় না যে রোগী মারা যাক। ’