grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

চলতি একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্দশ অধিবেশন বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) শুরু হচ্ছে। ওই দিন বিকাল ৫টায় সংসদের বৈঠক বসার কথা রয়েছে। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার এ অধিবেশন চলবে মাত্র চার কার্যদিবস। করোনাকালের অন্য অধিবেশনের মতো এবারও মানা হবে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফের মৃত্যুতে সংসদের প্রথম দিনের বৈঠক শোকপ্রস্তাব গ্রহণের পর মুলতবি হবে। তার আগে পাঁচ জন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের নাম ঘোষণা করা হবে।

চলতি সংসদের কোনও সদস্য মারা গেলে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রেওয়াজ অনুযায়ী বৈঠক মুলতবি করা হয়। তার আগে ওই সংসদ সদস্যকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সংসদে আলোচনা হয়।

করোনাভাইরাসের কারণে এবার শুক্রবারও জাতীয় সংসদের বৈঠক বসবে। তৃতীয় দিন শুক্রবার ছুটির দিন হলেও অধিবেশন বসবে। ওই দিন বিকাল ৪টায় বসবে অধিবেশন। করোনার কারণে তাড়াতাড়ি অধিবেশন শেষ করতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তবে এবারও সাংবাদিকরা সেখানে প্রবেশের অনুমতি পাচ্ছেন না।

সংসদের গণসংযোগ বিভাগের পরিচালক মো. তারিক মাহমুদ জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে অধিবেশনকালীন সাংবাদিকদের পাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। জনস্বার্থে অধিবেশনের সব কার্যক্রম সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার (লাইভ সম্প্রচার) হবে।

সংসদের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, করোনা পরীক্ষা করে সংসদ সদস্য ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অধিবেশনে যেতে হয়। অধিবেশনের কার্যদিবসের মধ্যে বিরতি রাখলে কেউ সংক্রমিত হতে পারেন। এ জন্য শুক্রবারও অধিবেশন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

অধিবেশন সংক্ষিপ্ত হলেও এতে গুরুত্বপূর্ণ আইন পাশ হওয়ার কথা রয়েছে। এবারের অধিবেশনে নতুন তিনটি বিলসহ ১৫টি বিল নিষ্পত্তি হতে পারে।

আসন্ন অধিবেশনটি হবে চলতি বছরের চতুর্থ অধিবেশন। গত ৩ জুলাই শেষ হয়েছিল সংসদের ১৩তম অধিবেশন, যেটি ছিল বাজেট অধিবেশন। করোনা প্রকোপের মধ্যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গত কয়েকটি অধিবেশন বসেছে। জাতীয় সংসদের এক অধিবেশন শেষ হওয়ার পরবর্তী ৬০ দিনের মধ্যে অধিবেশন ডাকার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।