grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ১৯৮ জনের মৃত্যু হয়েছে; গতকাল একই সময়ে মারা যান ১৭৪ জন। গতকালের তুলনায় আজ ২৪ জন বেশি মারা গেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন সাত হাজার ৫৩৫ জন; এটা গতকাল ছিল ছয় হাজার ৯৫৯ জন। আজ গতকালের তুলনায় ৫৭৬ জন বেশি রোগী করোনা শনাক্ত হয়েছেন। অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত দুটোই বেড়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৯৮ জন নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত মারা গেলেন ২৪ হাজার ৫৪৭ জন এবং ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হওয়া সাত হাজার ৫৩৫ জনকে নিয়ে মোট শনাক্ত হলেন ১৪ লাখ ৩৩ হাজার ৩৯৬ জন।

মঙ্গলবার (১৭ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১২ হাজার ৯৫০ জন। তাদের নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৩ লাখ ১৪ হাজার ৯১৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৩৮ হাজার ৮৮১টি এবং পরীক্ষা করা হয়েছে ৩৯ হাজার ২৭৮টি। দেশে এখন পর্যন্ত মোট ৮৪ লাখ ৮০ হাজার ৮১৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৬২ লাখ ৭৫ হাজার ৮৫৭টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ২২ লাখ চার হাজার ৯৫৭টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ১৮ শতাংশ, আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৯০ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৭৩ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭১ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৯৮ জনের মধ্যে পুরুষ ১১৬ জন আর নারী ৮২ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে পুরুষ মারা গেলেন ১৬ হাজার ১৪৯ জন এবং নারী আট হাজার ৩৯৮ জন।

মারা যাওয়া ১৯৮ জনের মধ্যে ৯১ থেকে ১০০ বছরের ঊর্ধ্বে রয়েছেন দুই জন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১২ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৩৪ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৬৯ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৪১ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১৯ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১১ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে নয় জন এবং ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, মারা যাওয়া ১৯৮ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ৭২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৫২ জন, রাজশাহী বিভাগের নয় জন, খুলনা বিভাগের ২৬ জন, বরিশাল বিভাগের সাত জন, সিলেট বিভাগের ১৮ জন, রংপুর বিভাগের ছয় জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের রয়েছেন আট জন।

১৯৮ জনের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ১৫১ জন, বেসরকারি হাসপাতালে ৪১ জন, বাড়িতে তিন জন এবং হাসপাতালে মৃত অবস্থায় আনা হয় তিন জনকে।