।। শোবিজ প্রতিবেদন ।।

চিত্রনায়িকা পরীমনির সদস্যপদ সাময়িকভাবে স্থগিত করেছে চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পীদের সংগঠন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি।

শনিবার (৭ আগস্ট) বিকেল ৫টায় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (বিএফডিসি) এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এমন ঘোষণা দিয়েছেন সমিতিটির সভাপতি ও খল-অভিনেতা মিশা সওদাগর।

এ সময় মিশা সওদাগর বলেন, পরীমনির ঘটনাটি শিল্পী সমাজের জন্য বিব্রতকর। আমরা কোনো অন্যায়কে প্রশ্রয় দেই না। পরী বিষয়টির মামলা চলমান। সেটি নিয়ে মন্তব্য করা ঠিক নয়। আজ কেবিনেট মিটিংয়ে সব সদস্যের মতামত নিয়ে পরীমনির সদস্যপদ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সিনেমার অভিনয় শিল্পীদের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কাজ করে বাংলাদেশে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। সংগঠনটির গঠনতন্ত্রের ৬-এর ‘খ’ ও ৯-এর ‘গ’ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, কোনো সদস্য যদি সমিতির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করে কোনো কাজে লিপ্ত হয়, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে তার সদস্যপদ সাময়িকভাবে স্থগিত হবে। 

এক্ষেত্রে পরীমনির বিরুদ্ধে মামলা হওয়ায় স্থগিতাদেশের মধ্যে পড়লেন যাচ্ছেন এই চিত্রনায়িকা। তবে আদালতে তিনি নির্দোষ প্রমাণিত হলে সদস্যপদ ফিরে পাবেন। আর যদি দোষী সাব্যস্ত হন, সেক্ষেত্রে আজীবনের জন্য পরীমনি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্যপদ হারাবেন বলেও জানান মিশা সওদাগর।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, সহ-সভাপতি ডিপজল ও রুবেল। এছাড়া কার্যকরী কমিটির অরুণা বিশ্বাস, অঞ্জনা সুলতানা, আলেকজান্ডার বো, জ্যাকি আলমগীর, আলীরাজসহ অনেকে।

প্রসঙ্গত, গেল বুধবার (৪ আগস্ট) বিকেলে সুনির্দিষ্ট কিছু অভিযোগের ভিত্তিতে পরীমনির বনানীর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় তার বাসা থেকে ভয়ংকর মাদক এলএসডি, আইস, ইয়াবা ও বিপুল পরিমাণের মদ উদ্ধার করা হয়। অভিযানে পরীমনিকে গ্রেফতার করে র‌্যাব হেফাজতে নেয়া হয়। পরের দিন বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) পরীমনির বিরুদ্ধে বনানী থানায় পরীমনির বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়ের করে র‌্যাব। বর্তমানে তিনি রিমান্ডে আছে।