সাকলায়েন ও পরীমনি
grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

গ্রেফতারের পর রিমান্ডে নেয়া চিত্রনায়িকা পরীমনির সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে আলোচিত হওয়া পুলিশ কর্মকর্তা গোলাম সাকলায়েনকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) থেকে বদলি করা হয়েছে। শনিবার এক আদেশে ডিবির গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনারের (এডিসি) দায়িত্বে থাকা এই কর্মকর্তাকে ডিএমপির পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টে (দাঙ্গা দমন বিভাগ, পশ্চিম) বদলি করা হয়।

৩০ তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে শীর্ষস্থান অর্জনকারী এই কর্মকর্তার ডাক নাম শিথিল। রাজশাহীর চারঘাটে তার বাড়ি আর পড়াশোনা করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগে।

জুন মাসে পরীমনি ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদের বিরুদ্ধে বোটক্লাবে নিপীড়নের অভিযোগ আনায় ওই ব্যবসায়ীকে আটকের পর তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মাদকের মামলাটি তদারক করছিলেন গোলাম সাকলায়েন শিথিল।

ডিএমপির গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগের উপকমিশনার মো. ফারুক হোসেন জানান, বদলির আদেশের আগে সাকলায়েনকে ডিবির সব ধরনের দায়িত্ব থেকে বিরত রাখা হয়।

ঢাকার সংবাদমাধ্যম নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, মাদক মামলায় চার দিনের রিমান্ডের শুরুর দিনই গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে ডিবি কর্মকর্তা গোলাম সাকলায়েন শিথিলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠার তথ্য দেন পরীমনি।

আলোচিত এই অভিনেত্রী জানান, বোট ক্লাবসংক্রান্ত মামলার তদন্ত করতে গিয়ে পরীমনির সঙ্গে পরিচয় হয় সাকলায়েনের। এরপর গড়ে ওঠে ‘প্রেমের সম্পর্ক’। সাকলায়েন বিবাহিত হলেও পরিচয় দিয়েছিলেন অবিবাহিত হিসেবে।

জিজ্ঞাসাবাদে পরীমনি জানান, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার সাকলায়েনের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠার পর তারা একে অপরের বাসায় নিয়মিত যাতায়াত করতেন। এ তথ্যের সূত্র ধরেই সাকলায়েনের সরকারি বাসভবন রাজারবাগের মধুমতির ফ্ল্যাটের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে গোয়েন্দা বিভাগ।

সবশেষ গত ১ আগস্ট সাকলায়েনের সরকারি বাসভবন রাজারবাগের মধুমতির ফ্ল্যাটে যান পরীমনি। সেদিনের সিসিটিভি ফুটেজে স্পষ্ট হয়েছে সাকলায়েনের বাসায় ১৮ ঘণ্টা সময় কাটান এই অভিনেত্রী।

বিষয়টি নিয়ে শুক্রবার রাতে ঢাকার একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের অনলাইন পোর্টালে প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়। সেখানে পরীমনির গাড়িচালকের উদ্ধৃতি দিয়ে জানানো হয়, একাধিকবার তারা দুজনে গাড়িতে করে ঘুরেও বেড়িয়েছেন।

তবে পুলিশ কর্মকর্তা সাকলায়েনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি দাবি করেন, পরীমনির সঙ্গে তার কাজের সুবাদে পরিচয় ও কথা হয়েছে। এর বাইরে যা কিছু সংবাদমাধ্যমে এসেছে তার সবই মিথ্যা।

২০১২ সালে পুলিশ বাহিনীতে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদানকারী সাকলায়েনের প্রথম বদলি ছিলো নওগাঁয়। এরপর তিনি ২০১৬ সালে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) সহকারী কমিশনার (এসি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তার বদলি হয় ডিএমপিতে। বছর দুয়েক আগে তিনি পিপিএম পদক পান।