।। জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

করোনার গণটিকায় রাজশাহীতে আগ্রহ বেড়েছে সাধারণ মানুষের। টিকা দেওয়ায় গতি বাড়াতে আগামী ৭ আগস্ট শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে গ্রামে গ্রামে ক্যাম্পেইন। টিকা কার্যক্রম সফল করতে চলছে প্রস্তুতি।

স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, প্রস্তুতি শেষের দিকে। প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে টিকাদান কর্মীদের। গ্রাম পর্যায়ে কমিউনিটি ক্লিনিক,ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ অন্য অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে এ টিকা দেয়া হবে।স্বাস্থ্যসেবা ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মীরা স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসনের সহায়তায়  টিকাদান কার্যক্রম পরিচালনা করবেন।

রাজশাহীর ডেপুটি সিভিল সার্জন রাজিউল হক জানান, গ্রাম ও শহরের পাড়া-মহল্লায় গণটিকা সফল করতে প্রস্তুতি শেষ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এ কার্য্যক্রমে জনপ্রতিনিধিদের যুক্ত করার পাশাপাশি প্রশিক্ষণ দিয়েছেন ৪৩৮জন টিকাকর্মী ও ৬৫৭জন সাহায্যকারীকে।

তিনি জানান, জেলা জুড়ে টিকাদান কেন্দ্র ১২৬টি। সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে ও গ্রামের প্রতি ইউনিয়নে থাকবে ৩টি করে টিম। শহরে দেয়া হবে মর্ডানা আর গ্রামে দেয়া হবে সিনোফার্মের টিকা। চালু থাকবে বর্তমান ১৩টি কেন্দ্রও। সেখানে মিলবে শুধু দ্বিতীয় ডোজ। সপ্তাহে তিন দিন হবে টিকাদান। টিকা নিতে লাগবে জাতীয় পরিচয়পত্র। জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে কেন্দ্রে হাজির হলেই নেয়া যাবে টিকা। বয়স্ক ও নারীরা পাবেন অগ্রাধিকার। প্রয়োজনে অতি বয়স্ক এবং যাঁরা চলাফেরা করতে পারেন না, তাঁদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিকা দেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

আগ্রহ বেড়েছে সাধারণের

চলতি বছরের ৭ফেব্রুয়ারি রাজশাহীতে করোনা টিকা দেয়া শুরু হয়।স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেবে, রাজশাহীতে ৪ আগস্ট পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন তিন লাখের অধিক। দুই ডোজ সম্পন্ন করেছেন সোয়া লাখ মানুষ। নির্বাচন কমিশনের হিসেবে, জেলার ভোটার ১৯ লাখ ৪৭ হাজার ৫’শ ৭৭ জন। সে হিসেবে অন্তত একটি টিকা নিয়েছেন ১৫ শতাংশ, আর ৬ শতাংশ মানুষ দুটি ডোজই নিয়েছেন।

সিভিল সার্জন অফিসের হিসেবে, কোভিশিল্ড টিকার ১ম ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৩৩ হাজার ৭’শ ৭৪ জন। ২য় ডোজ নিয়েছেন ৮১ হাজার ৬’শ ৯৬ জন। অপেক্ষায় রয়েছেন ৫২ হাজার ৭৮ জন।সিনোভ্যাক্স এর টিকা নিয়েছেন ১ লাখ ২২ হাজার ২’শ ৩৮ জন। ২য় ডোজ পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৪’শ ২২ জন। অপেক্ষায় রয়েছেন ৮৫ হাজার ৮’শ ১৬ জন।মর্ডানার টিকা নিয়েছেন ৫০ হাজার ৭৫ জন।

এসেছে নতুন টিকা

নতুন করে ৩ ধরনের টিকা এসেছে ২ লাখ। বুধবার ৭৬ হাজার কোভিশিল্ড, ৮২ হাজার ৮০০ মডার্না ও ৩২ হাজার ৮০০ ডোজ সিনোভ্যাক্স এর টিকা রাজশাহীতে পৌঁছেছে।

রাজশাহী রেঞ্জ এর ডিআইজি আব্দুল বাতেন জানান, চাপ সামলাতে এবং টিকাদান নির্বিঘ্ন করতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের পাশাপাশি থাকবে আইন-শৃংঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা।

জনস্বাস্থ্যবিদরা বলছেন,গ্রামে গ্রামে টিকা দেয়ার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপুর্ন। তবে এটা মাথায় রাখতে হবে কায্যক্রমগুলো যাতে সঠিকভাবে হয়। একই সাথে  টিকার গুণগত মানের দিকেও নজর রাখতে হবে।