grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

দীর্ঘ ৫৫ বছর বন্ধ থাকার পর চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে আবার চালু হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল৷ রোববার (১ আগস্ট ) শুরু হবে এই ট্রেন চলাচল।

এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) বেলা একটায় ভারতীয় রেলওয়ের দু’টি লোকোমোটিভ ভারতের নিউ জলপাইগুড়ি থেকে ছেড়ে আসে।

পরে হলদিবাড়ি সীমান্ত দিয়ে নীলফামারীর চিলাহাটি সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশের চিলাহাটি রেলস্টেশনে পরীক্ষামূলক যাত্রা সম্পন্ন করে পুনরায় ফিরে যায়।

শনিবার (৩১ জুলাই) চিলাহাটি-চিলাহাটি সীমান্ত রেল সংযোগ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আব্দুর রহিম এ তথ্য জানান৷

১ আগস্ট রবিবার থেকে এই পথে দু’টি পণ্যবাহী ট্রেন চালু হচ্ছে। শুরুতে পণ্যবাহী ট্রেনে ভারত থেকে পাথর ও গম আসবে। এমনকি এ পথে অক্সিজেনবাহী ট্রেনও চলাচল করতে পারে। প্রথম ট্রিপে ৫৮টি ওয়াগনের একটি পণ্যবাহী ট্রেন ভারত থেকে এই রুটে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে।

এর আগে ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশের চিলাহাটি থেকে ভারতের হলদিবাড়ি পর্যন্ত পণ্যবাহী ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করা হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেছিলেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী।

চলতি বছর বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী এবং বাংলাদেশ-ভারত কূটনেতিক সম্পর্কের ৫০ বছর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ঢাকায় আসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ওই সময় ২৭ মার্চ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যৌথভাবে ঢাকা থেকে নিউ জলপাইগুড়ি পর্যন্ত আন্তঃদেশীয় যাত্রীবাহী ‘মিতালী এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধন করেন। যাত্রীবাহী ট্রেনটি উদ্বোধন করা হলেও করোনা পরিস্থিতি যাত্রীবাহী ট্রেনের চাকা আপাতত থামিয়ে রেখেছে।

অন্যদিকে উভয় দেশের তরফে যাত্রী ট্রেন চলাচলের সব ব্যবস্থাই ঠিকঠাক রয়েছে। মহামারি করোনার কারণে তা থেমে রয়েছে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর বিপুলসংখ্যক মানুষ দার্জিলিং ভ্রমণ করেন। তাদের যেতে হয় অনেক পথ ঘুরে এবং ব্যয়ও হয় বেশি। 

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি পথে রেল সচল হলে ট্রেন বাংলাদেশে আসতে ১৫০ কিলোমিটার পথ সাশ্রয় হবে। সেক্ষেত্রে মাত্র ৬০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতেই বাংলাদেশে আসা সম্ভব হবে।