।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

আদালতের রায়ে স্থগিত সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) ওই মাসের ৪ তারিখে ভোট করার পরিকল্পনা নিয়েছে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

শোকের মাস আগস্টে কোনও ভোট না করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশন থেকে আগে থেকেই নেয়া হয়েছে। এ কারণে ইসি ১৮০ দিনের সময়সীমার একেবারেই শেষ প্রান্তে গিয়ে এ ভোট করার প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আগস্ট মাসে তো ভোট হবেই না, এমনকি ওই মাসে ভোটের তারিখটাও ঘোষণা করা হবে না। জানা গেছে, ভোটের আগে ২/৩ দিন সময় রেখে সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ ঘোষণা করা হবে। এক্ষেত্রে ওই মাসের ৪ তারিখ ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করা হবে। অবশ্য ওইদিন সম্ভব না হলে ৫ সেপ্টেম্বর ভোটের দিন নির্ধারণ করা হতে পারে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় ভোটগ্রহণের ১৮০ দিনের মেয়াদ আগামী ৬ সেপ্টেম্বর সোমবার শেষ হবে। কমিশনকে এ সময়ের মধ্যে ভোট করে আনুষ্ঠানিক ফলাফল (গেজেট প্রকাশ) করতে হবে।

প্রসঙ্গত, করোনার সংক্রমণ পরিস্থিতিতে রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত সোমবার এক আদেশে সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত স্থগিত করে। আদালতের আদেশ পেয়ে ইসি ওইদিনই উপনির্বাচনটি স্থগিত ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে। পূর্বঘোষিত শিডিউল অনুযায়ী ২৮ জুলাইয়ে এ আসনের উপনির্বাচনের কথা ছিল।

তবে আদালতের আদেশ অনুযায়ী ৫ আগস্টের পরে যেকোনও দিন ভোট করার সুযোগ থাকলেও শোকের মাসের বিষয়টি বিবেচনা করে তারা সেপ্টেম্বরেই ভোট করতে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, শোকের মাসে কোনও ধরনের নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে ঢাকা-১৪, কুমিল্লা-৫ এবং সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন ২৮ জুলাই অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ইসি তফসিল ঘোষণা করেছিল।  ঢাকা-১৪ ও কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচন অনুষ্ঠানে ১৮০ দিনের মেয়াদ পূর্ণ হতে ইসির হাতে বেশ কিছু দিন সময় থাকলেও সিলেট-৩ আসনের জন্য ইসির হাতে সময় ছিল সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পর্যন্ত। কিন্তু সেপ্টেম্বরে ভোট করতে গেলে যদি এক বা একাধিক কোনও কেন্দ্রের ভোট স্থগিত হয় এবং এতে নির্বাচনের ফলাফলে প্রভাব পড়ে—তখন জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে এমন আশঙ্কায় জুলাইয়ের ২৮ তারিখ ভোটের সিদ্ধান্ত নেয়। তবে আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে ইসিকে সেই সেপ্টেম্বরেই যেতে হলো।

তিনটি আসনের উপনির্বাচনের মধ্যে ঢাকা-১৪ ও কুমিল্লা-৫ আসনের উপনির্বাচনে একক প্রার্থী হওয়ায় এ দুটি আসনে উপনির্বাচনের প্রয়োজন পড়েনি। এ দুটি আসনে বিজয়ী আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা ইতোমধ্যে শপথও গ্রহণ করেছেন। তবে সিলেট-৩ আসনে একাধিক প্রার্থী থাকায় ভোটের প্রয়োজন পড়ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, কমিশন আগে থেকেই নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী শোকের মাসে কোনও নির্বাচন করবে না। ফলে সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে হচ্ছে।