grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

একটি সাধারণ রক্ত পরীক্ষায় ৫০টির বেশি ধরনের ক্যান্সার শনাক্ত করা যাবে। ‘গ্যালেরি’ নামের এই পরীক্ষায় রোগীর দেহে ক্যান্সারের উপসর্গ দেখা দেয়ার আগেই তা শনাক্ত করা সম্ভব হবে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ক্যান্সারের স্ক্রিনিং পরীক্ষার জন্য ব্যবহার করার মতো এটির যথেষ্ট কার্যকারিতা রয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এখবর জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক গ্রেইল কোম্পানি এই পরীক্ষার উদ্ভাবন ও গবেষণার জন্য অর্থায়ন করেছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে উপসর্গ ও ক্লিনিক্যাল সাইন দেখা দেয়ার আগে ক্যান্সার শনাক্ত করার জন্য শুধু চিকিৎসকের পরামর্শে এই পরীক্ষা চালু হয়েছে। বর্তমানের ব্রেস্ট, সার্ভিক্যাল, প্রোস্টেট, ফুসফুস ও অন্ত্রের ক্যান্সারের স্ক্রিনিং প্রক্রিয়াগুলোর সহায়ক হিসেবে এটি কাজ করবে।

গ্যালেরি’র আগের একটি সংস্করণের ক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় ৫০টিরও ক্যান্সার শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে মাত্র এক ফোঁটা রক্ত থেকে। এর মধ্যে ৪৫ ধরনের ক্যান্সারের কোনও স্ক্রিনিং করার ব্যবস্থা নেই।

গ্রেইল-এর রক্ত পরীক্ষার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ১ লাখ ৩৪ হাজারের বেশি মানুষ অংশগ্রহণ করেন। এই রক্ত পরীক্ষায় ক্যান্সারের অবস্থানও জানা গেছে। কোম্পানিটির প্রধান মেডিক্যাল কর্মকর্তা ড. জশুয়া ওফম্যান বলেন, এসব পরীক্ষায় যখন ক্যান্সারের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে তখন শরীরের কোন স্থানে তাও উচ্চ নির্ভুলতার সঙ্গে জানা গেছে। এটি চিকিৎসকদের রোগ নির্ণয়ের পরবর্তী পদক্ষেপ ও চিকিৎসা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিতে সহযোগিতা করে।

এই রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে অনেক ধরনের ক্যান্সার শনাক্ত করা যায় যেগুলোর এখন কোনও স্ক্রিনিং পরীক্ষা নেই। যেমন, লিভার, প্যানক্রিয়েটিক ও এসোফাজিয়াল ক্যান্সার। এই ক্যান্সারগুলো সবচেয়ে বেশি প্রাণঘাতী এবং শুরুতে শনাক্তের ফলে জীবন বাঁচানোর সুযোগ তৈরি হতে পারে।