grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

খুলনায় করোনা পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করছে। দ্রুত চিকিৎসা নিশ্চিতে সরকারি দুটি ও বেসরকারি একটি হাসপাতালে করোনা পজিটিভদের সেবা দেয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার (২২ জুন) সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় এ তিনটি হাসপাতালে ১১ জন করোনা পজিটিভ রোগীর মৃত্যু হয়। খুলনা করোনা হাসপাতালে সাতজন, খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে একজন ও বেসরকারি গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালে তিনজনের মৃত্যু হয়।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটের মুখপাত্র ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার বলেন, মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত হাসপাতালে ১৪৯ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে রেড জোনে ৯৮ জন, ইয়োলো জোনে ১৩ জন, ডিএইচইউতে ১৮ জন ও আইসিইউতে ২০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ভর্তি হয়েছেন ২২ জন ও ছাড়পত্র নিয়েছেন ৩৪ জন। এ সময়ের মধ্যে মারা গেছেন সাত জন করোনা পজিটিভ রোগী।

খুলনার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ বলেন, হাসপাতালে বর্তমানে ১৯ জন পুরুষ ও ১৩ জন মহিলা নিয়ে ৩২ জন পজিটিভ রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় এখান থেকে পাঁচজন ছাড়পত্র নিয়েছেন, আর একজন মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তি যশোরের নওয়াপাড়ার শেখ মোশারফ হোসেন (৭৬)।

খুলনার বেসরকারি গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, সেখানে ৭৫ জন পজিটিভ রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২০ জন ও ছাড়পত্র নিয়েছেন ১৭ জন। মারা গেছেন তিনজন। হাসপাতালটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬ নমুনা পরীক্ষায় ১৩ জন পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ জানান, সোমবার (২১ জুন) রাতে খুমেকের পিসিআর মেশিনে ৩৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৭৭ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। এর মধ্যে খুলনার ৩২৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ৮০ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া বাগেরহাটের ১১ জন, সাতক্ষীরায় তিনজন, যশোরের পাঁচজন, নড়াইলে তিনজন, কুমিল্লা-বরগুনা-নাটোর ও টাঙ্গাইলের একজন করে রোগী রয়েছেন।