grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাস্তায় নেমেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (১ জুন) রাজধানীর নীলক্ষেতের রাস্তায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন তারা।

এর আগে শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করে জানিয়েছিলেন, ৩১ মে’র মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া না হলে ১ জুন থেকে সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা রাস্তায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন।

বাংলা কলেজের শিক্ষার্থী রিয়াদ হোসেন বলেন, ‘বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেই বেলা ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত নীলক্ষেতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করলাম। আগামী ৩ জুন সকাল ১১টায় আবারও অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন শিক্ষার্থীরা।’

আন্দোলনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘গত বছরের মার্চে কলেজ ক্যাম্পাসগুলো বন্ধ করে দেয়ার ১৪ মাস পার হলেও শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে কোনও রোডম্যাপ ঘোষণা করা হয়নি; বরং কোনও পরিকল্পনা ছাড়া একের পর এক তারিখ ঘোষণা করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রহসন করা হয়েছে। অনলাইন ক্লাস চালু রাখা হয়েছে। কিন্তু ডিভাইস সংকট ও নেটওয়ার্কের সমস্যার কারণে অধিকাংশ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করতে পারেননি। এই পরিস্থিতিতে ক্যাম্পাসগুলো বন্ধ রেখে অনলাইনে কার্যক্রম চালানোর ঘোষণা ছাত্ররা মানেন না। আর যেখানে অফিস-আদালত, মার্কেট, গার্মেন্টস সব খোলা, সেখানে করোনার অজুহাতে স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখা অযৌক্তিক। তাই আমরা দাবি জানাই, অবিলম্বে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়া হোক।’

আন্দোলনের নেতৃত্বে রয়েছেন ইডেন কলেজ শাহিনুর সুমি, ঢাকা কলেজের সাইফুল ইসলাম, বাংলা কলেজের রিয়াদ হোসেন ও রবিউল আলম এবং তিতুমীর কলেজের সুমন নায়েক।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনা রোগী শনাক্ত হলে ওই বছর ১৭ মার্চ সারাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। দফায় দফায় তা বাড়িয়ে আগামী ১২ জুন পর্যন্ত বন্ধ রাখা হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয় প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে। আর আবাসিক শিক্ষার্থীদের টিকা নিশ্চিত করে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার ঘোষণা দেয়া হবে।