grand river view

।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশন রাজশাহী শাখা। মানববন্ধন থেকে রোজিনাকে নির্যাতনের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থাসহ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও সচিবের পদত্যাগ দাবিও করেন বক্তারা।

বৃহস্পতিবার (২০ মে) সকাল ১১ টার দিকে রাজশাহী নগরের সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশন রাজশাহী শাখার উদ্যোগে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে রাজশাহীতে কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা বলেন, সাংবাদিকরা আমলাদের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির কথা তুলে ধরে। এতে করে সাংবাদিকরা সরকারকে সচেতন করে। রোজিনা জাতির কল্যাণে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাকে মামলার শিকার হতে হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে হবে। সাংবাদিকরা হামলা-মামলায় ভয় পাই না। রোজিনার পাশে হাজারো সাংবাদিক রয়েছে। তারা জেলে যেতে প্রস্তুত। রোজিনার বিরুদ্ধে করা মামলা দ্রুত প্রত্যাহার করতে হবে।

বক্তারা আরো বলেন, বাদীকে জাতির সামনে ক্ষমা চাইতে হবে। ১০০ বছরের একটি পুরোনে ধারায় এই মামলা করা হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব কোনভাবেই এই ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না। এই চক্রটি সারাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে নাজুক অবস্থায় নিয়ে গেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একটি ব্যর্থ মন্ত্রণালয়, এ মন্ত্রণালয়ের বেশিভাগ কর্মকর্তা দুর্নীতিগ্রস্ত। এটি দেশের জন্য লজ্জাকর। দুর্নীতিগ্রস্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

মানববন্ধনে বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন রাজশাহী শাখার সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদের সভাপতিত্বে ও বিএফইউজের নির্বাহী সদস্য জাবিদ অপুর সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক, সাবেক সভাপতি আকবারুল হাসান মিল্লাত, কাজী শাহেদ, সাংবাদিক কল্যাণ তহবিলের চেয়ারম্যান ও সোনালী সংবাদ পত্রিকার সম্পাদক লিয়াকত আলী, আরেইউজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মামুন-অর-রশিদ, টেলিভিশন ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মেহেদী হাসান শ্যামল, রাজশাহী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আসলাম উদ দৌলা, সিটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রফিক আলম, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সহসাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মো. কামরুজ্জামান।