।। জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

মজুদ ফুরিয়ে যাওয়ায় রাজশাহীতে বন্ধ হয়ে গেলো করোনার টিকা কার্যক্রম। বৃহস্পতিবার টিকাদান কার্যক্রমের পর স্বাস্থ্য বিভাগের মজুদ ফুরিয়ে যায়। টিকা না থাকায় এ কার্যক্রম আবার কবে শুরু হবে তা নিয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারছেন না স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা। তারা জানিয়েছেন, নতুন ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত এই কার্যক্রম শুরু করা যাবে না।

রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. মো. কাইয়ুম তালুকদার জানান, রাজশাহীতে প্রথম দফায় টিকাগ্রহীতার সংখ্যা ১ লাখ ৩৩ হাজার ৭৭৪ জন। নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় টিকা গ্রহণ করেছেন ৮১ হাজার ৬৪০ জন। মজুদ শেষ হওয়ায় দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে পারেননি ৫২ হাজার ১৩৪ জন। এই ব্যাক্তিরা কবে টিকা পাবেন সেটি নিশ্চিত নন তিনি।

তিনি আরও বলেন, “এখন পর্যন্ত যারা ভারত থেকে আসা সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের একই প্রতিষ্ঠানের ভ্যাকসিন নেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে সরকার পরবর্তীতে যে সিদ্ধান্ত দেবে, সেটি কার্যকর করা হবে।”

নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে টিকা পাওয়া না গেলে প্রথম দফার কার্যকরিতা ঠিক থাকবে কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “বিষয়টি জানা নেই। এটি সরকার অথবা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে ঊর্ধ্বতনরা বলতে পারবেন।”

উল্লেখ্য, প্রথম দফায় ১লাখ ৮০ হাজার ডোজ টিকা আসে রাজশাহীতে। প্রদানের পর মজুদ ছিল ২ হাজার । দ্বিতীয় দফার ৮৪ হাজার ডোজ টিকা আসার পর দ্বিতীয় ডোজের কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর নতুন করে আর কোনো ভ্যাকসিন আসেনি।