grand river view

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কারণে চীন থেকে টিকা আনতে দেরি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, “চীনের তিনটা ডকুমেন্ট এর দুটো পাঠানো হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কারণে কিছুটা দেরি হচ্ছে। এ জন্য আমাদের রাষ্ট্রদূত খুবই হতাশ, ডকুমেন্টগুলো না হলে প্রসেস চূড়ান্ত করা যাচ্ছে না। তিনি আমাকে ফোন করেছেন, মেসেজ দিয়েছেন; আমি সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছি তাগাদা দেওয়ার জন্য।”

বৃহস্পতিবার (২০ মে) রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ঢাকায় নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জ্যাং-কিয়ান সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানান তিনি।

চীন থেকে দেশে টিকা আনার বিষয়টি চূড়ান্ত পর্যায়ে আছে বলে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “আমরা চীন থেকে টিকা আনার বিষয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ে আছি। চীন তিনটা ডকুমেন্ট পাঠিয়েছিল, এর মধ্যে আমরা দুটো ফিলআপ করে পাঠিয়েছি ; আমাদের একটা ডকুমেন্ট গতকাল বুধবার চীনে পাঠানো হয়েছে। ওই ডকুমেন্টে কিছু অংশ ইংরেজি আর বাকি অংশ চৈনিক ভাষায় ছিল। আমরা ফিলআপ করার সময় চৈনিক ভাষায় লেখা অংশে সই করিনি। চৈনিক ভাষা বোঝার জন্য এরই মধ্যে আমরা একজন প্রফেসর নিয়োগ দিয়েছি।”

তিনি আরও বলেন, “আমরা শুধু যোগাযোগ করিয়ে দেই। বাকি কাজটা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দেখে। তারা ঠিক করে কবে টিকা আনবে, কতগুলো আনবে।” এ সপ্তাহের মধ্যেই এ কাজ শেষ হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ড. মোমেন।