।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

দশকের পর দশক ধরে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধর মূলে যেসব কারণ সেগুলোর কোনো সমাধান এতদিনেও হয়নি বলেই ঘুরে ফিরে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের সংঘাত বাঁধে। কিন্তু বিবিসি বলছে, এবারের এই পরিস্থিতির পেছনে আছে সাম্প্রতিক আরও কিছু ঘটনা। বিশেষ করে ইসরায়েলের সাম্প্রতিক নির্বাচন ও তাদের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর ক্ষমতা পাকাপোক্ত করার প্রচেষ্টা এই পরিস্থিতি সৃষ্টির পেছনে কাজ করেছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, “এবারের সংঘাতের কেন্দ্রে জেরুসালেম। রমজানের সময় পুলিশের বাড়াবাড়ি এবং আদালতের মাধ্যমে কয়েকটি ফিলিস্তিনি পরিবারকে উৎখাতের বিতর্কিত একটি তৎপরতা নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন দফার এই বিরোধ। তবে অন্য কোনো কারণেও এটি শুরু হতে পারতো।“

পূর্ব জেরুসালেমের আরব অধ্যুষিত এলাকা শেখ জারাহ থেকে চারটি ফিলিস্তিনি পরিবারকে বাড়িছাড়া করার এক বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নিয়ে গত কয়েক সপ্তাহ ফিলিস্তিনিদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে।

শেখ জারায় যে জমির ওপর ঐ চারটি ফিলিস্তিনি পরিবার গত প্রায় ৭০ বছর ধরে বসবাস করছেন – হঠাৎ তার মালিকানা দাবি করে কয়েকজন কট্টরপন্থী ইহুদি। জেরুসালেম নগর কর্তৃপক্ষ এবং শহরের একটি নিম্ন আদালত সেই দাবি মেনেও নেয়। ফিলিস্তিনিদের ক্ষোভের সূচনা সেখান থেকেই।

বহুদিন ধরেই ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সন্দেহ দানা বেঁধেছে যে ইসারায়েলি দক্ষিণপন্থীরা জেরুসালেম থেকে ছলেবলে তাদের উৎখাত করতে বদ্ধপরিকর, এবং শেখ জারাহ থেকে ঐ চারটি পরিবারকে বাড়িছাড়া করার সিদ্ধান্ত সেই ছকেরই অংশ।

শেখ জারাহ এবং জেরুসালেমের পুরনো এলাকার বিভিন্ন জায়গায় গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ফিলিস্তিনি কিশোর তরুণদের সাথে লেহাবা এবং আরো কিছু কট্টর ইহুদি সংগঠনের সদস্যদের সাথে বিচ্ছিন্নভাবে হাতাহাতি, গালিগালাজ বিনিময় চলছিল।

এরই মধ্যে রোজার শুরুতে পুলিশ জেরুসালেমে ফিলিস্তিনিদের ওপর কিছু বিধিনিষেধ বসালে পরিস্থিতির আরো ঘোলাটে হয়ে ওঠে।

যেমন, বহুদিন ধরেই রোজার সময় পুরনো শহরের দামেস্ক গেটের চত্বরে সন্ধ্যায় জমা হয়ে ইফতার করে অনেক ফিলিস্তিনি। এবার ইসরায়েলি পুলিশ তা নিষিদ্ধ করে – যা নিয়ে ক্ষোভ তৈরি হয়।

সেই সাথে যোগ হয় কট্টর ইহুদিদের ‘জেরুসালেম দিবস‘ কুচকাওয়াজ নিয়ে উত্তেজনা। ১৯৬৭ সালে আরবদের সাথে যুদ্ধে পূর্ব জেরুসালেম দখলের ঘটনাকে ইসরায়েলি দক্ষিণপন্থীরা প্রতিবছর উদযাপন করে। প্রতিবছর ১০ মে এই উপলক্ষে কয়েক হাজার ইহুদি পূরব জেরুসালেমের ফিলিস্তিনি এলাকার ভেতরে দিয়ে মিছিল করে।

এবছর ঘটনাক্রমে দিনটি পড়েছে রোজার ভেতর। ফিলিস্তিনিরা চেয়েছিল এবার যেন ঐ মিছিলের রুট বদলানো হয়। কিন্তু ইসরায়েলি পুলিশ বা নগর কর্তৃপক্ষ তাতে কান দেয়নি যা নিয়ে ফিলিস্তিনিরা ক্ষুব্ধ ছিল ।

তবে সোমবার শেষ মুহূর্তের এক সিদ্ধান্তে মিছিলটি ফিলিস্তিনি এলাকায় যেতে দেওয়া হয়নি। সেই সকালে আল-আকসা মসজিদ চত্বরে ইসরায়েলি পুলিশি অভিযান, তারপর সেই রাতেই ইসরায়েলকে লক্ষ্য গাযা থেকে রকেট ছোঁড়া এবং গাযায় ইসরায়েলি বিমান হামলার পর সংঘাত যে বিপজ্জনক চেহারা নিয়েছে – তা ২০১৮ সালের পর দেখা যায়নি।

বিবিসির মতে, কয়েক বছর ধরে শান্তি আলোচনায় পুরোপুরি স্থবিরতা এবং কোভিড প্যানডেমিকের কারণে বহু মানুষ যে অর্থনৈতিক চাপে পড়েছেন সেটিও বহু মানুষের মধ্যে ক্ষোভ এবং হতাশা তৈরি করেছে যেটি, তার মতে, সংঘাতের ঝুঁকি বাড়িয়েছে।

ইসরায়েলের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিও এই সংঘাতর পেছনে কাজ করছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। গত দুই বছর ধরে ইসরায়েলে একের পর এক নির্বাচনে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছেনা। গত নির্বাচনের পরও বিনইয়ামিন নেতানিয়াহু শরীক জোগাড় করে সরকার গঠন করতে ব্যর্থ হলে প্রেসিডেন্ট বিরোধী ইয়েস আডিট দলের নেতা ইয়ার লাপিডকে সরকার গঠনের সুযোগ দেন।

সরকার গড়তে হলে আরব দলগুলোর সমর্থন দরকার লাপিডের। সেই চেষ্টা তিনি করছিলেন। এখন জেরুসালেমের ঘটনাপ্রবাহ, ফিলিস্তিনি পরিবার উচ্ছেদের ঘটনায় আরব দলগুলো তো আর কথা বলতে চাইছে না। সোমবারের পর লাপিড এবং তার বর্তমান শরিকদেরও এখন সরকার ও সেনাবাহিনীকে সমর্থন দেওয়া ছাড়া গত্যন্তর থাকবে না“

ফলে, জোট সরকারের গঠনে লাপিডের চেষ্টা ঝুঁকিতে পড়ে গেছে। বিবিসির বিশ্লেষণ, এই সংঘাতের রাজনৈতিক ফায়দা এখন নিশ্চিতভাবেই পাবেন নেতানিয়াহু। এখন পরিস্থিতির চাপে লাপিড যদি জোট গঠনে ব্যর্থ হন, তাহলে ইসরায়েলে আরেক দফা নির্বাচনের সম্ভাবনা তৈরি হবে। এবং ফিলিস্তিনিদের সাথে চলতি এই বিরোধ হয়তো সেই নির্বাচনে নেতানিয়াহুকে সাহায্য করতে পারে।