।। ইকেনাকাটা ডেস্ক ।।

অতিমারির কারণে অনেকেই ভিড়ভাট্টা এড়িয়ে চলেন। মার্কেট বা শপিংমরেও যা না। যাবতীয় কেনাকাটা অনলাইনেই সারেন। কিন্তু অনলাইনে কেনাকাটা করতে গিয়ে অনেকেই প্রতারিত হয়ে থাকেন। সাধারণত, ফেসবুকে বিভিন্ন ব্রান্ডের নামে ভুয়া পেজ খুলে এ ধরনের প্রতারণা করা হয়। লোভনীয় অফার এবং আকর্ষণীয় পণ্যের কথা বলে টাকা হাতিয়ে নেয়া হয় এসব পেজ ব্যবহার করে।

বাংলাদেশের ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন, ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসিমা আক্তার নিশা বেশ কিছু বিষয়ের প্রতি খেয়াল রাখার কথা বলেছেন যেগুলো ই-কমার্সে প্রতারণা এড়াতে সহায়ক হতে পারে।

খেয়াল রাখুন পেজের বয়স কত

প্রথমে দেখতে হবে পেজ কতদিনের পুরনো। একেবারেই অপরিচিত হলে এবং নতুন পেজ হলে তা থেকে কেনাকাটা না করাই ভালো।

রিভিউগুলো দেখে নিতে পারেন

ফেসবুকের পেজগুলো থেকে কেনাকাটার সময় খেয়াল রাখতে হবে সেখানে আগের রিভিউগুলো কতটা পজিটিভ আর কতটা নেগেটিভ। নেগেটিভের সংখ্যা বেশি হলে সেখান থেকে কেনাকাটা না করাই ভালো।

ই-ক্যাবের সদস্য কিনা জেনে নিন

পেশাদার ই-কমার্স ব্যবসায়ীদের অনেকেই ই-ক্যাবের সদস্য হয়ে থাকে। এই সংগঠনের সদস্যদের অনেক নিয়মকানুন মেনে চলতে হয়। তাই কেনাকাটার আগে তারা ই-ক্যাবের সদস্য কিনা, সেটা দেখে নেয়া যেতে পারে।

ব্র্যান্ডের নাম ঠিক আছে কিনা ভালোভাবে দেখুন

বিখ্যাত প্রতিষ্ঠানের নাম ঠিক আছে কিনা, সেটাও ভালোভাবে দেখতে হবে। অনেক সময় প্রতারকরা বিখ্যাত ব্র্যান্ডের নাম এবং লোগো সামান্য এদিক সেদিক করে প্রতারণার চেষ্টা করে। কিন্তু মনে রাখতে হবে, বিখ্যাত কোনো ব্র্যান্ড যখন তখন তাদের নাম এবং লোগো পরিবর্তন করে না।

প্রতারিত হলে অভিযোগ করুন

আপনি যদি সতর্কতার পরেও প্রতারণার শিকার হন তাহলে তাৎক্ষণিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে অভিযোগ করুন। তখন তারা এই জাতীয় প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবে এবং অন্যদের প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা বন্ধ হবে।