।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

করোনার কারণে দ্বিতীয় দফা স্থগিত হয়েছে বাংলাদেশে অনুষ্ঠেয় আইসিসি নারী অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিত হবে টুর্নামেন্টটি। আগামী জুন-জুলাইয়ে শ্রীলঙ্কায় হওয়ার কথা ছিল ২০২২ সালের আইসিসি নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব। সেটিও স্থগিত হয়ে গেছে করোনার থাবায়। কয়েক মাস পিছিয়ে চলতি বছরের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে বাছাই পর্ব।

এ টুর্নামেন্টের আগে শ্রীলঙ্কার মাটিতে একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলার কথা ছিল বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের। বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার মধ্যকার ত্রিদেশীয় সিরিজটিও করোনার পেটে বিলীন হয়ে গেছে।

বিসিবির উইমেন্স উইংয়ের চেয়ারম্যান শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল গতকাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আসলে হচ্ছে না। খবরটা জানেন বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটাররাও। ইমার্জিং দলের অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি এ সম্পর্কে বলেছেন, ‘জুন-জুলাইয়ে আমাদের বাছাই পর্ব ছিল। তার আগে একটা ট্রাই নেশন ছিল শ্রীলঙ্কায়। সেটাও স্থগিত হয়ে গেছে করোনার কারণে।

ত্রিদেশীয় সিরিজ বাতিল হলেও জুনে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলার চিন্তা করছে বিসিবি। যার লক্ষ্যে ঈদুল ফিতরের পর নারী দলের ক্যাম্প আয়োজন করা হবে। নাদেল গতকাল বলেছেন, আমাদের শ্রীলঙ্কা যাওয়ার কথা ছিল জুনে। এখন বিষয়টি নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতির ওপর। আমরা শ্রীলঙ্কা সফরকে সামনে রেখে ঈদের পর ক্যাম্প শুরু করব। শুরুতে পরিকল্পনা ছিল একটা ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবো ওখানে, পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কাসহ। কিন্তু পাকিস্তান সাড়া দেয়নি। তাই আমরা শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে খেলার পরিকল্পনা করছি।

এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকা ইমার্জিং নারী দলের বিরুদ্ধে হোম সিরিজে ৪-০ তে জিতেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। সিরিজ জুড়ে দেশীয় শাহনেওয়াজ শানুই ইমার্জিং দলের হেড কোচের দায়িত্বে ছিলেন। তার পারফরম্যান্সে সন্তষ্ট বিসিবির উইমেন্স উইং। ইমার্জিং দলের শানুকে জাতীয় দলের দায়িত্বও দিতে চায় উইমেন্স উইং।

 গতকাল নাদেল বলেছেন, আমার মনে হয় উনি খুব ভালো কাজ করেছেন। গেম ডেভেলপমেন্ট বিভাগ যদি আমাদের দেয় তাহলে আমরা তাকে রেখেই কাজ করব। তাছাড়া এখন বিদেশি কোচ পাওয়া খুব কঠিন। গত বছর ভারতীয় আঞ্জু জৈন বিদায় নেওয়ার পর থেকে বিদেশি হেড কোচ নেই নারী দলের।