রাজশাহীতে করোনা

।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের করা ঝুঁকিপূর্ণ জেলার তালিকায় রাজশাহীর অবস্থান ছিলো এবার শুরু থেকেই। এই তথ্যের সঙ্গে তাল মেলাতেই যেন প্রতিদিনই এই জেলায় করোনা শনাক্তের হার বেড়েছে লাফিয়ে। কিন্তু সব শেষ গত দুদিনের পরিসংখ্যান বিস্মিত করেছে খোদ স্থানীয় জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদেরকেই। এর মধ্যে গত ১০ এপ্রিল পরীক্ষিত নমুনার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিলো ৪৮ শতাংশ। অর্থাৎ পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার প্রায় অর্ধেকের কাছাকাছি।

জানতে চাইলে রাজশাহীর জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. চিন্ময় কান্তি দাস বলেন, “না আমরা মানছি। না মানাতে পারছি। অথচ, এবার আমাদের সামনে ঢের বিপদ। এরকম একটা বিপৎসঙ্কুল পরিস্থিতির মধ্যে আমাদের গা ঢালা মনোভাবকে আত্মঘাতী ছাড়া আর কিছু বলা যায় না।”

রাজশাহী স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এ বছরের এপ্রিলের প্রথম নয় দিনে গড়ে সংক্রমিত হওয়ার হার ২৪ শতাংশ। অথচ গেলো বছর একই সময়ে আক্রান্তের হার ছিল মাত্র ২ শতাংশ। তারওপর যেখানে গতবছর এপ্রিল ও মে দুই মাসে আক্রান্ত হয়েছিল ৩১জন,সেখানে এবছর এপ্রিলের প্রথম ১০ দিনেই আক্রান্ত ৭০০ জন।

সবশেষ গত ১১ এপ্রিল পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের যে হার, তাও শঙ্কা-জাগানিয়া। এদিন রাজশাহীর ২৭৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৯৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। হিসাবটি খুব সহজ! এদিন পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্তের হার প্রায় ৩১ শতাংশ।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, রামেক হাসপাতালের কেবিন, আইসিইউ ও দুটি করোনা ওর্য়াডে রোগী পরিপূর্ণ থাকায় খালি নেই বেড। নতুন দুটি ওর্য়াড চালুর প্রস্তুতি শেষের দিকে। 

ডা. চিন্ময় জানান, স্বাস্থ্যবিধি না মানলে এই পরিস্থিতিতে রাজশাহীতে করোনা প্রতিরোধ করার সুযোগ থাকবে না। তিনি বলেন, “এই মুহূর্তে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বিকল্প নেই।”