।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

রাজশাহীতে সরকারের বেঁধে দেয়া সময়ে দোকান খোলা রাখলেও ক্রেতা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত দোকানপাট ও শপিংমল খোলা হচ্ছে বলে জানালেন তারা।

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) রাজশাহী নগরের নিউমার্কেট, থিম ওমর প্লাজা ও আরডিএ মার্কেট ঘুরে দেখা যায় দোকান খোলা থাকলেও ক্রেতা সমাগম কম।

আরডিএ মার্কেটের ব্যবসায়ীরা বলছেন, লকডাউনের জন্য নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেয়ায় ক্রেতা সমাগম নেই। গতবারের মতো এবারো দ্বিতীয় দফায় ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন তারা। আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে ফের কঠোর লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। ব্যবসায়ীরা দাবি করছেন, সামনে ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে রোজার মধ্যে যেন নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত দোকান খোলার অনুমতি দেয়া হয়।

আরডিএ মার্কেটের কাপড় ব্যবসায়ী রাকিব মিয়া বলেন, পুরো লকডাউন না দিয়ে সরকারের কাছে নির্দিষ্ট সময় চাই। সকাল ৯ টা থেকে ৬ টা পর্যন্ত সময় বৃদ্ধি করলে সুবিধা হয়।

আরেক কাপড় ব্যবসায়ী আলী আহসান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসা করা হচ্ছে। দূরত্ব চিহ্ন ও মাস্ক, জীবাণুনাশক ব্যবহার করা হচ্ছে। তবুও ক্রেতার আগমন নেই। ফলে ব্যবসায় চরম ক্ষতি হচ্ছে।

আরো কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, আশা ছিল গতবছর করোনায় যে ক্ষতি হয়েছিল এবার তা পুষিয়ে নেবে। কিন্তু লকডাউনের কারণে দ্বিতীয় দফায় ক্ষতির মুখে পড়লাম আমরা। আমাদের দোকান খরচই উঠছে না। ব্যবসায়িক ক্ষতির কারণে কর্মচারি ছাঁটাই করতে বাধ্য হচ্ছি।

থিম ওমর প্লাজার রঙ বাংলাদেশের বিক্রয়কর্মী তিথি জানান, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে ক্রেতা অনেক কম। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসা করা হচ্ছে দোকানগুলোতে। তবে বেচাকেনা কম। নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী রফিকুল আলম বলেন, আমাদের লাখ লাখ টাকার ক্ষতি হচ্ছে ব্যবসায়। এভাবে চলতে থাকলে ব্যবসা টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না।

রাজশাহী ব্যবসায়ী সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার আলী বলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ক্ষুদ্র ব্যবসা পুঁজি হারিয়ে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। এমন সময় লকডাউন দেয়ায় ব্যবসায়ীরা নতুন সংকটের সম্মুখীন হয়েছেন।