।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে এক নারী নিয়ে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের আটক ও পরে তাকে ছিনিয়ে নেওয়া এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানে হামলার ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ না করতে পারার অভিযোগে ওসি রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

তবে অন্য এক সূত্রের দাবি, হেফাজত নেতা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করে রাখার ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ করেন হেফাজত নেতারা। এসময় থানার ভেতরে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন তারা। একপর্যায়ে তারা ৭১ টেলিভিশনের নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি বুলবুল আহম্মেদের মোবাইল কেড়ে নিয়ে ভেঙে ফেলেন। এসময় তারা গণমাধ্যমকর্মীদের নামে বিষোদগার করতে করতে থানার ভেতর থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উপজেলা পরিষদ চত্বরে যান।

এ ঘটনার পর রবিবার রাতে ওসি রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

গত, ৩ এপ্রিল মামুনুল হক তার কথিত দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে রয়্যাল রিসোর্টে ৫০১ নম্বর কক্ষে ওঠেন। পরে স্থানীয় লোকজন হোটেল ঘেরাও করে। এ ঘটনার জের ধরে হেফাজতের নেতাকর্মীরা রয়্যাল রিসোর্টে হামলা চালিয়ে মামুনুল হককে ছিনিয়ে নিয়ে যান।

যদিও পুলিশ দাবি করেছে তাকে হেফাজতের স্থানীয় নেতাকর্মীদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল। এ ঘটনার জের ধরে পরবর্তী সময়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বাড়ি ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে হামলার ঘটনা ঘটে।