।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

আর একদিন পরেই শুরু হবে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২১ চলছে শেষ মুহূর্তের স্টল সাজসজ্জার কাজ। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বাংলাদেশে ২০২১ সালে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ভার্চ্যুয়াল বা অনলাইনে করার জল্পনা ছিল। শেষ পর্যন্ত ঠিক হয়েছে, ১৮ মার্চ শুরু হচ্ছে মেলা।

মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) সরেজমিনে দেখা যায়, বেশিভাগ স্টলের কাজ শেষ হয়ে গেছে। কেউ কেউ স্টলের ডেকোরেশনের কাজ করছেন। আবার কেউ স্টলের সাজ-সজ্জার কাজ করছেন। সেরে নিচ্ছেন রঙ তুলির শেষ কাজটুকু।

 এদিকে, আসন্ন বইমেলা নির্বিঘ্ন করতে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নেওয়া হয়েছে। বইমেলা কেন্দ্রিক কোনো ধরনের নাশকতা ও প্রকাশকদের ওপর হামলার হুমকি নেই বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) বেলা সাড়ে ১১টায় বইমেলা প্রাঙ্গণে অস্থায়ী ডিএমপি কন্ট্রোল রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) কৃষ্ণ পদ রায়।

তিনি বলেন, এবারে বইমেলায় প্রধানত তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। পোশাকধারী পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েনের পাশাপাশি সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়া, সিসিটিভি, আর্চওয়ে থাকবে, গোয়েন্দা সংস্থা ও ডিবির টিম সার্বক্ষণিক দায়িত্বে থাকবেন। আমাদের মোবাইল পেট্রোল থাকবে, ফুট পেট্রোল টিম সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবে। 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বইমেলায় কোনো ধরনের নাশকতা ও প্রকাশকদের ওপর হামলার হুমকি নেই। তবে বিষয়টা আমাদের মাথায় রয়েছে। অতীতের ঘটনা মাথায় রেখেই আমরা গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করেছি। মানুষের অনুভূতিতে আঘাত দেয় এমন বই প্রকাশ হচ্ছে কিনা আমরা খোঁজ রাখছি। কেউ অপরাধমূলক কাজ করছে কিনা সে ব্যাপারেও আমরা নজরদারি করছি। এমন কোনো তথ্য পেলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

তিনি বলেন, আমরা একটি ভিন্ন সময়ে বইমেলা শুরু করছি। করোনার পরিস্থিতি মাথায় রেখে প্রতি বছরেরর মতো এবারো নিছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এবার একটি অতিরিক্ত প্রবেশ পথ যুক্ত করেছি যেটি ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট অথবা শিখা চিরন্তন গেট দিয়ে প্রবেশ করা যাবে। 

ডিএমপির এই কর্মকর্তা বলেন, পার্কিংয়ের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা থাকবে। যারা বই মেলায় আসবেন শুধুমাত্র তারাই ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটের গেট দিয়ে প্রবেশ করবেন। বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মাঝখানের পথ পথচারীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। বিশেষ কোনো পরিস্থিতি ছাড়া এ পথে গাড়ি প্রবেশ করবে না।

ভাষার মাসের প্রথম দিন থেকেই বাংলা একাডেমি চত্বরে বইমেলা শুরু হয়। রেওয়াজ অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী এ বইমেলার উদ্বোধন করে থাকেন।