।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

সেনাঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল এবং গণতন্ত্রপন্থিদের বিক্ষোভ দমাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নের জেরে দেশটির সঙ্গে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা স্থগিত এবং অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া।

শুক্রবার দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এক বিবৃতিতে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, সিউল মিয়ানমারের কাছে অন্যান্য কৌশলগত পণ্য রফতানিও কমিয়ে দেবে।

এছাড়াও মিয়ানমারের জন্য উন্নয়ন সহযোগিতা এবং সেখানকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত মিয়ানমারের নাগরিকদের দক্ষিণ কোরিয়ায় মানবিক আশ্রয় দেয়ার বিষয়টিও বিবেচনা করা হচ্ছে।

‘‘দক্ষিণ কোরিয়া সহ আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে বার বার বলার পরও মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাহিনীর দমন-পীড়নে দেশটিতে রক্ত ঝরা অব্যাহত আছে এবং প্রাণহানির ঘটনা বাড়ছে।”

দক্ষিণ কোরিয়া ২০১৯ সালে সর্বশেষ মিয়ানমারে প্রতিরক্ষা সরঞ্জামাদি রপ্তানি করেছিল। দেশটি এখনো মিয়ানমারের উন্নয়ন প্রকল্পে কোটি কোটি ডলার ব্যয় করছে।

কিন্তু মিয়ানমারের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে সিউল সেখানে উন্নয়ন সহযোগিতা করা নিয়ে দ্বিতীয় বার বিবেচনা করছে। তবে যেসব প্রকল্পে মিয়ানমারের সাধারণ মানুষের জীবনধারন এবং মানবিক সহায়তার বিষয়টি সরাসরি সম্পর্কিত সেসব প্রকল্পের কাজ অব্যাহত থাকবে বলেও ওই বিবৃতিতে জানানো হয়।

গত ১ ফেব্রুয়ারি সেনাঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক সরকারের পতনের পর সেখানে সেনাশাসনের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষ টানা বিক্ষোভ করে যাচ্ছে। বিক্ষোভ দমনে জান্তা বাহিনী বলপ্রয়োগ করছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ৭০ জন বিক্ষোভকারী পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন।