।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের হাজার হাজার ডোজ নকল টিকা জব্দ করেছে পুলিশ। অভিযানে জালিয়াত চক্রের কয়েকজন সদস্যকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দক্ষিণ আফ্রিকার গাওটেং এলাকার একটি গুদামে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। সেখান থেকে ২ হাজার ৪০০ ডোজ নকল টিকা জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় আটক করা হয়েছে তিন চীনা ও এক জাম্বীয় নাগরিককে। তবে ঠিক কবে এসব অভিযান চালানো হয়েছে, তা স্পষ্ট নয়।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়া চীনে নকল টিকা তৈরির অভিযোগে একটি কারখানায় অভিযান চালিয়ে ৮০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে সেখান থেকে অন্তত তিন হাজার ডোজ নকল টিকা জব্দ করা হয়।

বুধবার (৩ মার্চ) ইন্টারপোল এক বিবৃতিতে বলেছে, তারা নকল টিকা উৎপাদন ও সরবরাহে যুক্ত অন্য চক্রের খবরও পাচ্ছে। ইন্টারপোল জানিয়েছে, অনলাইনে এই মুহূর্তে কোনো অনুমোদিত করোনা টিকা বিক্রি করা হচ্ছে না। সংস্থাটি আরও বলেছে, কোনো অনুমোদিত বা গোপন ওয়েবসাইটে কোনো টিকার বিজ্ঞাপন প্রচার করা হলে তা হবে অবৈধ। এসব টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষা করা হয়নি। এগুলো বিপজ্জনক হতে পারে।

করোনা মহামারি থেকে বাঁচতে টিকার বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। বিভিন্ন ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান কয়েকটি টিকার অনুমোদন দেয়ার পর এগুলো কিনতে বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে তীব্র প্রতিযোগিতা। এই চাহিদাকে পুঁজি করে গজিয়ে উঠছে ওই সব জালিয়াত চক্র।

ইন্টারপোল বলেছে, দক্ষিণ আফ্রিকার জারমিস্টন ও গাওটেং এলাকায় কয়েক হাজার ডোজ নকল টিকা জব্দ করা ছাড়াও বিপুল পরিমাণ নকল ৩এম মাস্ক পাওয়া গেছে। যেসব কারখানায় অভিযান চালানো হয়েছে, সেখান থেকে উদ্ধার করা নকল টিকার কিছু ছবিও প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।

গত ডিসেম্বরে ইন্টারপোল তার ১৯৪টি সদস্য দেশে একটি বৈশ্বিক সতর্কবার্তা জারি করে। সতর্কবার্তায় কোভিড-১৯ টিকা নিয়ে গড়ে ওঠা সংগঠিত অপরাধ নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর জন্য তৈরি থাকতে নির্দেশনা দেয়া হয়। একই সঙ্গে দেয়া হয় জাল চিকিৎসাসামগ্রী শনাক্ত করার পদ্ধতি সম্পর্কে পরামর্শও।