।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

চীনে করোনাভাইরাসের নকল ভ্যাকসিন তৈরি করে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে বিপুল পরিমাণ অর্থ। বেশ কয়েক মাস ধরেই একটি প্রতারক চক্র নকল ভ্যাকসিন তৈরি করে তা মানুষের কাছে বিক্রি করছিল। সম্প্রতি এ চক্রের ৮০ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে চীনা কর্তৃপক্ষ। সিএনএনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

চীনা সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যম শিনহুয়া জানিয়েছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ভুয়া ভ্যাকসিনের ব্যবসা করছিল চক্রটি। সম্প্রতি জিয়াংসু, বেইজিং ও শানডং এলাকা থেকে অন্তত ৮০ জনকে গ্রেফতার করেছে চীনা পুলিশ। অভিযুক্তরা অন্তত তিন হাজার ডোজ নকল ভ্যাকসিন বানিয়েছিল। প্রতিবেদনে পুলিশের বরাতে শিনহুয়া জানিয়েছে, অভিযুক্তরা ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ইনজেক্টরগুলোতে স্যালাইন ভরে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নামে বাজারজাত করতো এবং সেগুলো চড়া দামে বিক্রি করে বিপুল অর্থ আয় করেছে।

চীনে ভুয়া ভ্যাকসিন উৎপাদন ও বিক্রয় সম্পর্কিত অপরাধ এবং ভ্যাকসিনের আড়ালে জালিয়াতি ও অবৈধ মেডিসিন অনুশীলনের বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে দেশটির জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয়। চীনে বর্তমানে দুটি প্রতিষ্ঠানের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন ব্যবহৃত হচ্ছে- সিনোভ্যাক এবং সিনোফার্মের। চীনের বাইরে তুরস্কের মতো আরও কয়েকটি দেশেও চলছে এগুলোর ব্যবহার।

সিনোভ্যাক এবং সিনোফার্ম দাবি করেছে, তাদের ভ্যাকসিন ৭৮ শতাংশের বেশি কার্যকর। অবশ্য ব্রাজিলে সিনোভ্যাকের শেষ ধাপের ট্রায়ালে কার্যকারিতা ৫০.৩৮ শতাংশ পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে।