।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

চীনে গত আট মাসের মধ্যে প্রথম করোনায় কোনো ব্যক্তির মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। এমন এক সময় এই খবর এল, যখন করোনার উৎস অনুসন্ধানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বিশেষজ্ঞ দল চীনের উহানে পৌঁছাল। বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

ডব্লিউএইচওর ১০ সদস্যের শক্তিশালী বিশেষজ্ঞ দলটি আজ উহানে পৌঁছায়।ডব্লিউএইচওর এই অনুসন্ধানী মিশনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পিটার বেন এমবারেক।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। পরে তা মহামারি আকারে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। করোনায় এখন পর্যন্ত বিশ্বের ৯ কোটি ২৭ লাখের বেশি মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। মারা গেছেন প্রায় ১৯ লাখ ৮৬ হাজার মানুষ। উৎপত্তির পর এক বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত করোনার উৎস সম্পর্কে স্পষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা।

করোনার উৎস অনুসন্ধানে একটি আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ দলকে চীনের উহানে পাঠাতে বেশ কয়েক মাস ধরে চেষ্টা চালিয়ে আসছিল ডব্লিউএইচও। গত মাসে ডব্লিউএইচও ঘোষণা দেয়, বিভিন্ন দেশের ১০ জন বিজ্ঞানীর সমন্বয়ে গঠিত আন্তর্জাতিক তদন্ত দল ২০২১ সালের জানুয়ারিতে উহান যাবে। তবে চীন অনুমতি না দেওয়ায় চলতি মাসের শুরুর দিকে নির্ধারিত সময়ে চীনে যেতে পারেনি তদন্ত দল। এতে তদন্তের বিষয়ে চীনের আগ্রহ নিয়ে সন্দেহ দেখা দেয়। এ ঘটনায় হতাশা প্রকাশ করে ডব্লিউএইচও। তদন্ত দলকে যথাসময়ে অনুমতি দেওয়ার ক্ষেত্রে একটা ‘ভুল-বোঝাবুঝি’ হয়েছে। অবশেষে আজ ডব্লিউএইচওর তদন্ত দল উহানে গেল।

ডব্লিউএইচওর অনুসন্ধানী মিশনের নেতা পিটার বেন এমবারেক জানিয়েছেন, বিশেষজ্ঞ দলটি উহানে যাওয়ার পর চীনের নিয়ম অনুসারে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকবে। এ সময় তারা একটি হোটেলে অবস্থান করবে। পিটার বেন এমবারেক বলেন, দুই সপ্তাহ পর আমরা বাইরে যেতে পারব। সশরীরে চীনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারব। আমরা যেসব জায়গায় যেতে চাইব, সেখানে যেতে পারব।

তবে পিটার বেন এমবারেক সতর্ক করে বলেন, ঠিক কী ঘটেছিল, সে সম্পর্কে তাঁদের পূর্ণ ধারণা পেতে দীর্ঘ সময় লেগে যেতে পারে। পিটার বেন এমবারেক বলেন, ‘আমি মনে করি না যে এই প্রাথমিক মিশনের পরই আমরা সুস্পষ্ট উত্তর পাব। তবে আমরা কাজ চালিয়ে যাব।

ডব্লিউএইচওর বিশেষজ্ঞ দলের উহানে যাওয়ার প্রাক্কালে দেশটিতে করোনার সংক্রমণ ফের বাড়ছে। শুধু তা-ই নয়, প্রায় আট মাসের মধ্যে চীন প্রথম করোনায় কোনো ব্যক্তির মৃত্যুর তথ্য জানাল। করোনায় সবশেষ মারা যাওয়া ব্যক্তির বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানায়নি দেশটির কর্তৃপক্ষ। তারা শুধু জানিয়েছে, ওই ব্যক্তি হেবেই প্রদেশের বাসিন্দা। প্রদেশটির বেশ কিছু শহরে লকডাউন জারি আছে।

চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন দেশটিতে নতুন করে ১৩৮ জনের করোনায় সংক্রমিত হওয়ার তথ্য জানিয়েছে। গত বছরের মার্চের পর দেশটিতে এক দিন এটাই সর্বোচ্চসংখ্যক ব্যক্তির সংক্রমিত হওয়ার ঘটনা।

করোনার সংক্রমণের প্রেক্ষাপটে চীনের উত্তরাঞ্চলের ২ কোটির বেশি মানুষ লকডাউনের আওতায় আছে। এ ছাড়া একটি প্রদেশে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের মাধ্যমে চীন করোনার সংক্রমণ অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। কিন্তু এখন দেশটিতে নতুন করে লোকজন সংক্রমিত হচ্ছেন। তবে বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় চীনে করোনার সংক্রমণ খুবই কম। আগামী মাসে চীনা নববর্ষ উৎসবকে কেন্দ্র করে দেশটিতে করোনার সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

Berger Weather Coat

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.