রাবি ভিসি-প্রেভিসি

।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

গত ৫ দিন ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক আবদুস সোবহান ও উপ-উপাচার্য (প্রোভিসি) অধ্যাপক চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া ঢাকায় অবস্থান করছেন। গত শুক্রবার (১ জানুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের এই দুই শীর্ষকর্তা ঢাকা যাবার পর মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ফিরে আসেননি।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্তে রাবি প্রশাসনের কয়েক শীর্ষকর্তা ও তাদের ঘনিষ্ঠ একাধিক শিক্ষকের অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ মেলে। এরপর শিক্ষা মন্ত্রণালয় কারণ দর্শানোর নোটিশসহ ১২টি চিঠি দেয় রাবির সংশ্লিষ্টদের। এর মধ্যে তদন্তে অসহযোগিতা করায় ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এমএ বারীকে পদত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) তিনি পদত্যাগ করলে ওই দিনই সিন্ডিকেট সভায় তা গৃহীত হয়। এর পরদিনই ঢাকার উদ্দেশে ক্যাম্পাস ছাড়েন ভিসি-প্রোভিসি।

এদিকে, রাবি’র এসব অনিয়ম দুর্নীতি নিয়ে শিগগির ব্যবস্থা নেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়। খোদ শিক্ষামন্ত্রী সম্প্রতি বলেন, ‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাপারে যেসব অভিযোগ পেয়েছিলাম, সেগুলো তদন্ত করে বেশ কিছু ক্ষেত্রে আমরা সত্যতা পেয়েছি। সেই তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আমাদের মন্ত্রণালয় থেকে কিছু ব্যবস্থা নিয়েছি। কিছু নির্দেশনা পাঠয়েছিলাম। আমরা এখন সেগুলো দেখবো, সেই নির্দেশনা কতোটা পালন করলো বা করেনি। যদি না করে থাকে তাহলে সেটি কেন করলো না, সে বিষয়ে আমাদের যা করণীয় আমরা নিশ্চয়ই করবো।’

রাবি ভিসির ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, ভিসি ও প্রোভিসি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সশরীর নিজেদের ব্যাখ্যা দেয়ার উদ্দেশে ঢাকা গেছেন। তার দাবি, ভিসি ও প্রোভিসি বিশ্বাস করেন, তাদের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হবে মন্ত্রণালয়।

প্রশাসনের অন্য একটি সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষামন্ত্রণালয়ে ব্যাখ্যা দেয়ার পাশাপাশি ভিসি ও প্রোভিসির এই ঢাকা সফরের আরেকটি উদ্দেশ্য ছিলো প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাদের বার্তা পৌঁছানো। সূত্র মতে, ক্যাম্পাসে শেখ রাসেল স্কুল ও কলেজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোর প্রচেষ্টার সঙ্গে সঙ্গে তারা এই কাজটি করতে চান। যদিও বিষয়টিতে তারা এখনও সফল হননি বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

এর আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন শিগগির রাবি’র বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার ইঙ্গিত দিয়ে জানান, সংশ্লিষ্টদের অনেকের কাছ থেকেই ব্যাখ্যা পাওয়া গেছে। সেগুলো পর্যালোচনা করে এ সপ্তাহের পরেই সরকার ব্যবস্থা নেবে বলে তিনি জানান।

এনিয়ে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ভিসি ও প্রোভিসি দুজনের কেউই ফোন ধরেননি। তবে রাবি জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক ড. আজিজুর রহমান জানান, ভিসির ঢাকা যাবার বিষয়টি জানলেও প্রোভিসির যাবার বিষয়টি তার জানা নেই।

কী কারণে এই ঢাকা সফর জানতে চাইলে জনসংযোগ প্রশাসক বলেন, ‘এটা অফিসিয়াল নাকি ব্যক্তিগত সফর, তা আমি বলতে পারবো না। তবে আমি যদ্দূর জানি ভিসি মহোদয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে শেখ রাসেল স্কুল ও কলেজ উদ্বোধনের আমন্ত্রণ জানাতে গিয়েছেন।’ ঠিক কবে নাগাদ ফিরবেন, সেই তথ্যও জানেন না বলে জানান ড. আজিজুর।