।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

কানাডার টরেন্টোতে নির্বাসিত পাকিস্তানি মানবাধিকারকর্মী কারিমা বালুচের (৩৭) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পাকিস্তান রাষ্ট্র ও সেনাবাহিনীর কঠোর সমালোচক এই অধিকারকর্মী গত রোববার নিখোঁজ হওয়ার পর তার সন্ধান চেয়ে আবেদন জানায় পুলিশ। পরে তার বন্ধুরা মৃতদেহ পাওয়ার কথা জানায়। এ ঘটনা তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে বিভিন্ন মানবাধিকার গ্রুপ। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

পাকিস্তানের অশান্ত অঞ্চল বেলুচিস্তানের বাসিন্দা কারিমা বালুচ। পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও রাষ্ট্রব্যবস্থার কঠোর এই সমালোচক ২০১৬ সালে বিবিসি’র একশ’ অনুপ্রেরণামূলক নারীর একজন মনোনীত হয়েছিলেন।

টরেন্টো পুলিশ সোমবার এক টুইট বার্তায় জানায়, কারিমা বালুচকে সর্বশেষ বে-স্ট্রিট এলাকায় রোববার দেখা যায়। পরে বিস্তারিত তথ্য না জানিয়ে বাহিনীটির তরফে বলা হয়, তার অবস্থান শনাক্ত হয়েছে। কারিমা বালুচের বন্ধু ও সহকর্মীরা জানান, তার মরদেহ শনাক্ত হয়েছে। কিন্তু তার মৃত্যুর কারণ তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

কারিমার বোন মঙ্গলবার বিবিসিকে বলেন, তার মৃত্যু কেবল পরিবারের জন্যই বেদনার নয়; বরং বালুচ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের জন্যও ক্ষতির কারণ। তিনি বলেন, কারিমা বিদেশে যেতে চেয়েছিল বলে যায়নি যেতে হয়েছিল। কারণ, পাকিস্তানে উন্মুক্তভাবে অ্যাক্টিভিজম করা অসম্ভব হয়ে পড়েছিল।

পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশে দীর্ঘদিন থেকেই স্বাধীনতার দাবিতে লড়াই চলছে। পাকিস্তানে বর্তমানে নিষিদ্ধ থাকা বালুচ স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশনের সাবেক প্রধান ছিলেন কারিমা বালুচ। ২০১৫ সাল থেকে কানাডায় বসবাস করে আসছিলেন তিনি। ওই সময় তিনি নিজের জীবন শঙ্কার কথা জানিয়ে আশ্রয় প্রার্থনা করেন।