প্রমোদ

যেসব রাতে আসমান থেকে
মধু গড়িয়ে নামে
আর পাথরে পাথরে
খলবল করে যৌন ব্যাকুলতা
সেসব রাতকে প্রমোদ প্রপাত
ঘোষণা করা হয়েছে
সে মোতাবেক আজ রাতের রবিবার

পাহাড়ের খাঁজে এখন পাতার খসখস
আসমানে নির্বিকল্প চাঁদ
তীব্র ছুটছে ত্রস্ত ঋষ্য শত শান্তিলতা
পাহাড়ি ঘূর্ণির টানে
নেমে আসছে রোজ কেয়ামত

তুমি কি প্রভুর বার্তাবাহী পাখি?
তবে যাও, গিয়ে তাকে বলো—
আজ রবিবার রাত—
এ বিষাদের রঙ মোছা যাবে না
কিছুতেই আর…

পাহাড়ের শিরা

যা কিছু পরিত্যাজ্য, যেমন—
তামাদি দিনের ভার, পাখির উপমা
কার্তুজের খোসা, এই রাতে
সব কিছু ফেলে দেয়া ভালো
যারা দেখছে না কিছু, তাদের তৃষ্ণায়
এইসব রূপকথা হয়ে ডানা মেলবে দ্রুত
গন্দমের ফুলে ভেসে বেড়াবে মৃত্যু সৌরভ

পুরোটা অন্ধ হবার আগে দেখে যেতে চাই
কীভাবে পাহাড়ের শিরা কেটে দিলে
অতটা গাঢ় হয়ে বয়ে যায় রক্তিম ঝিরি

দূরত্ব

দূরে আছি
যতটা দূরে গেলে
উদাসীনতা শেখা যায়
শেষ চিহ্নে কুড়িয়ে এনেছি
পাখিটির পালকের ভ্রম
দু’খণ্ড রুপোলি মেঘ
স্খলনের অর্ধনিম চোখে
যতদিন জেগে থাকবে চাঁদ
ততদিন তস্করেরা
আসবে যাবে
নক্ষত্র
জন্ম দেবে
সুগভীর
পাপ

প্রচ্ছদ হিম ঋতব্রত