কোটি টাকার সোনার বার আটক

।। নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ।।

ঢাকা-চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী গ্রামীন ট্রাভেলস নামের একটি বাসে করে অন্যান্য যাত্রীদের সাথে যাচ্ছিলেন আলাল (৪৫)। বেশভূশায় সাধারণ একজন মানুষ। বাসটি বুধবার বিকেলে ঢাকা থেকে রাজশাহী হয়ে যাচ্ছিলো চাঁপাইনবাবগঞ্জের উদ্দেশ্যে।

বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির কাছে তথ্য ছিলো ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে ওই বাসে করে সোনার একটি বড় চালান আসছে। এই তথ্যের ভিত্তিতে বিজিবি রাজশাহীর উপ-অধিনায়ক মেজর জাকারিয়া আজমের নেতৃত্বে একটি টহল দল বুধবার দুপুর থেকেই ওঁৎ পেতে ছিলেন।

এর পর বিকেল ৫টায় কাঙ্ক্ষিত ওই গাড়িটি এসে পৌঁছায় বেলপুকুরে অবস্থিত বিজিবির চেকপোস্টের কাছে। নিয়ম মাফিক শুরু হয় তল্লাশি। অবশেষে প্রায় এক কোটি টাকা সমমূল্যের ১২টি বিস্কুট আকৃতির স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়। যার ওজন প্রায় এক কেজি ৪০০গ্রাম। এসময় আটক করা হয় আলাল নামের এক যাত্রীকে। তিনি স্যান্ডেলের সুকতলার নিচে সোনার বারগুলো লুকিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তার কাছে সোনার বারগুলোর ক্রয়ের বা বহরেন বৈধ কোন কাগজ ছিলো না।

সোনার বারগুরো রাজশাহী শাখা জুয়েলার্স সমিতি যাচাই করে প্রতিটি স্বর্ণের বার ২৪ ক্যারেটের স্বর্ণ বলে নিশ্চিত করেন। পরে তার দেয়া তথ্য মতো চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর এলাকার নয়নচুকা কামারপাড়া গ্রামের শ্রী বাদল কর্মকারের ছেলে শ্রী সুব্রত কর্মকার (২৭) এবং মহানন্দা ব্রিজের নিচ থেকে একই জেলার বার ঘড়িয়া হলদার পাড়া গ্রামের শ্রী দিনেশ হালদারের ছেলে মিলন হালদারকে (২৮) আটক করা হয়।

এদিকে বিজিবি’র একটি সূত্রের দেয়া তথ্য মতে, কোটি টাকা মূল্যমানের সোনার বারের এই চালানটি আসছিলো ফেনী থেকে। যা চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি স্বর্ণের দোকানের মাধ্যমে হাতবদল হয়ে ভারতে পাচার করা হতো।

আটককৃত ৩জনের মধ্যে মিলন হালদার চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্বর্ণের ব্যবসায়ী। আর অন্য দুইজন আলাল ও সুব্রত স্বর্ণগুলোর ক্যারিয়ার বা বহনকারী হিসেবে কাজ করছিলেন।রাজশাহী ব্যাটালিয়ান (বিজিবি-১) এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, আসামীদেরকে বেলপুকুর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে এবং স্বর্ণের বারগুলো রাজশাহী জেলা প্রশাসনের ট্রেজারী শাখায় জমা করার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন আছে। আগামীতেও আমাদের এধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Berger Weather Coat