পড়তে পারবেন 2 মিনিটে Samsungtv

।। জাকির তালুকদার ।।

সেই ক্লাস সিক্সে পড়ার সময় বন্যাত্রাণের সাথে জড়িত হয়ে পড়েছিলাম। চলছে। ভাবি, মানবতার সেবা করছি। অবশ্যই এটা মানবসেবা। তীব্র আবেগ কাজ করত আগে। তবে এখন বন্যার বিভিন্ন দিক নিয়ে ভাবনা উঁকি দিচ্ছে মনের মধ্যে।

বন্যা কি শুধুই প্রাকৃতিক দুর্যোগ? নাকি এর সাথে মানবসৃষ্ট কারণ কিছু জড়িত আছে? আছে দেশীয় এবং বৈশ্বিক রাজনীতিও?

বন্যা হয়তো বন্ধ করা যাবে না। তবে এর প্রকোপ এবং ক্ষতি তো কমানো সম্ভব। তেমন কোনো পরিকল্পনা কি বাস্তবায়নের উদ্যোগ আমরা দেখেছি? একবার ‘ফ্যাপ’ নামে একটা পরিকল্পনার কথা শুনেছিলাম। তার কী অবস্থা জানি না। সম্ভবত কেউ-ই জানেন না।

ভারতকে গালি দেওয়া ছাড়া আমরা আর কিছু কি করেছি? নিশ্চয়ই ভারত আমাদের দেশের বন্যা-খরায় যথেষ্ট ভূমিকা রাখে। তাদের সদিচ্ছার প্রতি আবেদন জানিয়েই আমাদের দেশের কর্ণধাররা দায়িত্ব শেষ করেন।

আর কি কিছু করার নেই আমাদের?

অনেক মেগা প্রকল্প গ্রহণের ঢাকঢোল বাজে আমাদের মিডিয়ায়। বাংলাদেশের বন্যা এবং খরা নিয়ন্ত্রণে ভারতের অনীহাকে মনে রেখে এটা প্রতিরোধের মেগা প্ল্যান করেন না কেন কোনো সরকার?

জিয়াউর রহমানের সময় খালকাটা হয়েছিল। অনেক রাজনৈতিক প্রপাগান্ডা যুক্ত ছিল সেই কাজের সাথে। আমরা সদ্য তরুণরা সেই সময় এটি নিয়ে হাসি-ঠাট্টাও করেছি। হাসান আজিজুল হক তো দারুণ আলোচিত একটি গল্পই লিখে ফেললেন ‘খনন’ নামে। কিন্তু তা সত্ত্বেও মানতেই হবে যে, খালকাটা এবং নদী-পুনরুদ্ধার বন্যা-খরার প্রকোপ কমানোর একটি উপায় বটে। জিয়াউর রহমান এটি দেখে এসেছিলেন উত্তর কোরিয়ায়। কিম ইল সুং এই খালকাটাকে বলতেন ‘জুচে বিপ্লব’। এটি সেখানে কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে।

জিয়াউর রহমানের মৃত্যুর পরে তার দলও এটিকে চালিয়ে নেয়নি। অন্য সরকারের তো কথাই নেই।

নদীগুলোকে দখলমুক্ত করে খননের মাধ্যমে তাদের পানিপ্রবাহ বাড়ালে বন্যার প্রকোপ যে কমবে, সেকথা বিশেষজ্ঞ না হয়েও জানা যায়। এটি তো রাজনৈতিক ব্যাপার। কারণ নদী দখল সবসময়েই হয়েছে সরকারি মদদে।

কাজেই বন্যার কারণ হিসেবে যেমন রাজনীতি জড়িত, মোকাবিলাও তাই রাজনীতিকে সঙ্গে নিয়েই করতে হবে। ফি বছর মানুষ নিঃস্ব হবে, হাত পাতবে মনুষ্যত্বকে অবমাননা করে—মানুষকে অবমাননার এই রাজনীতি বন্ধ করা দরকার।

বন্যাত্রাণের কাজ করার পাশাপাশি বন্যার পেছনের নোংরা রাজনীতিটাকেও মনে রাখা দরকার।

জাকির তালুকদার: কথাসাহিত্যিক।

Berger Weather Coat