পড়তে পারবেন 2 মিনিটে

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে আনতে তিন মন্ত্রণালয় এক সঙ্গে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। তিনি বলেছেন, বিদেশে পলাতক বঙ্গবন্ধুর খুনীদের দেশে ফিরিয়ে আনতে পররাষ্ট্র , স্বরাস্ট্র ও আইনমন্ত্রী একসঙ্গে কাজ করছে। সরকারিভাবে এসব প্রচেষ্টার পাশাপাশি জনগণের সহযোগিতাও আমাদের লাগবে। আমরা যদি ১৬ ডিসেম্বরের আগে লাখ লাখ স্বাক্ষর সংগ্রহ করে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা সরকারের কাছে দিতে পারি, তাহলে খুনী রাশেদ চৌধুরী ও নূর চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে আনার পথ আরও সুগম হবে।

দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে মুজিববর্ষ উপলক্ষে জনতার প্রত্যাশা আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভার প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ তথা বলেন। এতে প্রধান আলোচক ছিলেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম। 

এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, খুনি রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে আমরা অনেকটাই অগ্রসর হয়েছি। সে মিথ্য তথ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্রান্ট হয়েছে। আমাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে তার ইমিগ্রেন্ট রিভিউ হচ্ছে। আশা করছি, তাকে মুজিববর্ষে ফিরিয়ে এনে ফাঁসির রায় কার্যকর করতে পারবো।

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, করোনার ভ্যাকসিন যেখান থেকেই পাওয়া যায়, তা আনা হবে। দেশের মঙ্গলের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, বাঙালি জাতি বিজয়ী জাতি। এই জাতি কখনো পরাজিত হবে না। আমরাও পরাজিত হবো না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সোনার বাংলা গড়ার কাজ করছি। বাংলাদেশ আজকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান জাতির জন্য বাঙালির জাতির জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন। তিনি জীবনের অনেকটা সময় জেলে কাটিয়েছেন। খুনিরা ব্যক্তিকে হত্যা করলেও তার আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি।

সংগঠনের সভাপতি এমএ করিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুর রহমান খান, নুরুল আমিন রুহুল এমপি, কৃষক লীগের সাবেক সহসভাপতি শেখ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, মুক্তিযাদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব সফিকুল বাহার মজুমদার টিপু, ইউএস আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সাদেক খান, জাতীয় মুক্তিযাদ্ধা সমন্বয় পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আকরাম হোসেন, জনতার প্রত্যাশার মশিউর রহমান, রোকন উদ্দিন পাঠান প্রমুখ।

Berger Weather Coat