পড়তে পারবেন < 1 মিনিটে Berger Weather Coat

  ।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

পাবনার পৌর সদরের দিলালপুর মহল্লায় বাবা-মা ও মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার (০৫ জুন) দুপুরে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহতরা হলেন-রাকাবের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল জব্বার (৬০) তার স্ত্রী ছুম্মা খাতুন (৫০) ও মেয়ে সানজিদা খাতুন (১৪)।

স্থানীয়রা জানান, এই বাড়ি থেকে পচা দুরগন্ধ পেয়ে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ ওই বাড়িতে গিয়ে জানালা দিয়ে ভেতরে উঁকি দিয়ে ভেতরে মরদেহ দেখতে পায়।

পাবনা জেলা পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি ডাকাতির ঘটনা হতে পারে। ডাকাতরা ডাকাতি করে তাদের কুপিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার পর বাড়ির সব মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। তবে ঘটনাটি দুই থেকে তিন দিন আগে ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পুলিশ জানায় রাজশাহী থেকে ক্রাইম ব্রাঞ্চের বিশেষ টিমকে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা আসার পরে ওই মরদেহ বের করা হবে। পুলিশ সুপারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

সর্বশেষ তথ্যমতে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বাড়ির মূল ফটকের তালা ভেঙে পুলিশের পাবনা ক্রাইম ব্রাঞ্চের সদস্যরা বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করেছে। দোতলা বিশ্লিষ্ট বাড়িতে ওই কৃষি কর্মকর্তা বছর তিনেক হলো ভাড়া রয়েছেন বলে জানা গেছে। ওই বাড়িতে আর কোনো ভাড়াটিয়া নেই। বাড়ির মূল মালিক দেশের বাইরে থাকেন বলে স্থানীয়দের মাধ্যমে জানা গেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাধারণ মানুষদের মধ্যে বেশ আতঙ্ক বিরাজ করছে। হত্যাকাণ্ডের শিকার ওই বাড়ির সদস্য আব্দুল জব্বার রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছিলেন। তার স্ত্রী ছুম্মা খাতুন গৃহিনী ও একটি পালিত মেয়ে সাজজিদা খাতুন পাবনা কালেক্টটরেট স্কুলে সপ্তম শ্রেণিতে অধ্যায়ন করতো বলে পরিবার সূত্রে পাওয়া গেছে।