Loading...
উত্তরকাল > বিস্তারিত > উত্তরবঙ্গ > দুর্যোগে আমের দাম পাওয়া না পাওয়া নিয়ে দোটানায় চাষিরা

দুর্যোগে আমের দাম পাওয়া না পাওয়া নিয়ে দোটানায় চাষিরা

পড়তে পারবেন 2 মিনিটে

।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে রাজশাহীর আমগাছগুলোতে এবার মুকুল এসেছিল কম। আবার মুকুল আসার পরপরই শুরু হয় করোনা-সংকট। তাই অনেকটা অবহেলা আর অযত্নেই এ বছর বেড়ে উঠছে রাজশাহীর আম। পর্যাপ্ত লোকবলের অভাবে গাছের পাতায় সময় মতো ছত্রাকনাশক স্প্রে করা হয়নি। প্রয়োজনের সময় গাছের গোড়ায় দেয়া হয়নি পানির সেচও। এরপরও প্রাকৃতিকভাবে যে ফলন হয়েছে; বলা হচ্ছিল- তা দিয়েই রাজশাহীসহ পুরো দেশের আমের চাহিদা পূরণ সম্ভব।

এবার মৌসুমের শুরু থেকে ঝড়-ঝঞ্ঝা লেগেই আছে। এর ওপর আঘাত হেনেছে সাইক্লোন ‘আম্পান’। আর আম্পান যেতে না যেতেই রাজশাহীর ওপর দিয়ে আবারও বয়ে গেছে কালবৈশাখী।

হালে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে পড়ে এর ধকল কোনোভাবেই সামলে উঠতে পারছে না রাজশাহীর আম। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে এমনিতেই আম বাজারজাত নিয়ে এবার রাজ্যের চিন্তা ভর করেছে রাজশাহীর আমচাষি ও ব্যবসায়ীদের ওপর। তার মধ্যে একের পর এক প্রাকৃতিক আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত হচ্ছে উঠতি আমের ফলন।

দেশের উপকূলে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ আঘাত হানে গত ২০ মে। তবে তাণ্ডব চালায় উত্তরের বিভাগীয় শহর রাজশাহীতেও। এরপর আরেক দফায় রাজশাহীর বাগানের আম ঝরায় ২৬ মে রাতের কালবৈশাখী। এই ঝড়ের তাণ্ডবে গোদাগাড়ী, পবা, চারঘাট ও বাঘা উপজেলায় থাকা বাগানগুলোয় প্রচুর আম ঝরে গেছে।

সরেজমিন পরিদর্শন করে স্ব স্ব উপজেলার চাষি ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে স্থানীয়ভাবে চালানো এক জরিপের পর রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, ওই ঝড়ের তাণ্ডবে রাজশাহীর ১৫ শতাংশ আম ঝরে গেছে।

এতে আম চাষি ও ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন। তবে কৃষি বিভাগ বলছে, এই ঝড়-শিলাবৃষ্টির মাঝেই রাজশাহীর আম বেড়ে ওঠে। ক্ষতি খুব একটা হবে না। এরপরও আম্পানে রাজশাহীর ক্ষতিগ্রস্ত আম বাগান মালিকরা ক্ষতিপূরণ পাবেন। এ জন্য সরকারের কাছে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ১১০ কোটি টাকা চেয়েছে কৃষি বিভাগ।

সাইক্লোন আম্পানের তাণ্ডবে রাজশাহীর বিভিন্ন উপজেলায় থাকা বাগান থেকে ১৫ শতাংশ আম ঝরে পড়েছে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলিম উদ্দিন। তিনি বলেন, পরের কালবৈশাখীতে এত পরিমাণ আম ঝরেনি। দুই দফার ঝড় মিলে মোটের ওপরে রাজশাহীর বাগানগুলোতে প্রায় ১৫ শতাংশ আমই ঝরেছে বলা যায়।

এমন পরিস্থিতিতে চলতি মৌসুমে রাজশাহী অঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্ত বাগান মালিকদের সরাসরি সরকারি প্রণোদনার আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মনিরুজ্জামান মনি। তাহলে আশঙ্কিত লোকসান কাটিয়ে তারা আবারও ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন। তা না হলে এবার স্থানীয় অনেক আম চাষি ও ব্যবসায়ী পথে বসবেন বলেও মনে করেন এই ব্যবসায়ী নেতা।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামসুল হক বলেন, পরের ঝড়ে এক শতাংশের বেশি আম ঝরেনি। কেবল পদ্মা নদীর কিনারায় যেসব বাগান রয়েছে, সেখানে কিছু আম ঝরেছে। রাজশাহীর এমন আম ঝড়-শিলাবৃষ্টির মাঝেই টিকে থাকে। তাই আপাত দৃষ্টিতে চাষিরা লোকসানের আশঙ্কা করলেও শেষ পর্যন্ত ক্ষতি খুব একটা দেখা দেবে না।

এরপরও আম্পানে রাজশাহীর ক্ষতিগ্রস্ত আম বাগান মালিকরা ক্ষতিপূরণ পাবেন। এ জন্য সরকারের কাছে ১১০ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক সুধীন্দ্রনাথ রায় বলেন, এখনও বাগানগুলোতে যে পরিমাণ আম আছে, তা সঠিকভাবে পরিচর্যা ও বাজারজাত করতে পারলে ভালো দাম পাওয়া যাবে। এরপরও সার্বিক পরিস্থিতি মনিটরিং করবেন বলেও জানান অতিরিক্ত পরিচালক।

করোনা পরিস্থিতিতে কৃষিবিভাগ ফসলের ক্ষয়ক্ষতির জরিপ করেছে উল্লেখ করেছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক। তিনি বলেন, গাছ থেকে পরিপক্ব আম নামানো, বিষমুক্ত আম বাজারজাতকরণ, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে আম বিপণন ও দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহের জন্য এরইমধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে। রাজশাহীর প্রত্যেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এখন বিষয়গুলো মনিটরিং করছেন। আর নতুন কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না এলে এই ক্ষতি সামলে ওঠা যাবে মনে করছেন।

সবশেষ আপডেট

উত্তরকাল

বিশ্বকে জানুন বাংলায়

All original content on these pages is fingerprinted and certified by Digiprove
%d bloggers like this: