।। বার্তাকক্ষ প্রতিবেদন ।।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্লাজমা সংগ্রহ শুরু করা হয়েছে। করোনাজয়ী ৩ চিকিৎসকের কাছ থেকে নেওয়া হবে এই প্লাজমা। শনিবার (১৬ মে) সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের প্রধান ও প্লাজমা থেরাপি সাব কমিটির প্রধান অধ্যাপক ডাক্তার এম এ খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সকাল সোয়া ১১টায় শুরু করা হয়েছে প্লাজমা সংগ্রহ। ঢামেকের (নতুন ভবন) ব্লাড ট্রান্সফিউশন বিভাগে করোনাজয়ীদের প্লাজমা সংগ্রহ হচ্ছে। করোনাজয়ী সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের ও মিটফোর্ড হাসপাতালের ৩ চিকিৎসকের দেহ থেকে বিশেষ যন্ত্রের মাধ্যমে নেওয়া হবে এই প্লাজমা।

তিনি আরও জানান, সংগ্রহ করা প্লাজমা পরীক্ষা করে দেখা হবে এন্টিবডি কতটুকু আছে। পরে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসার কাজে ব্যবহার করা হবে এ প্লাজমা।

দাতাদের মধ্যে প্রথমে প্লাজমা সংগ্রহ করা হচ্ছে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের চিকিৎসক দিলদার হোসেন বাদলের কাছ থেকে। ঢামেকের পরিচালক প্লাজমা সংগ্রহের উদ্বোধনের পর সাংবাদিকদের জানান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে ঢাকা মেডিক্যাল থেকে শুরু হলো প্লাজমা নেওয়া। ইনশাল্লাহ আমরা সফল হবো। আমরা তিনজন চিকিৎসককে ডোনার হিসেবে পেয়েছি।

হেমাটোলোজি বিভাগের প্রধান ডা. এমএ খান বলেন, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের ডা. দিলদার হোসেন বাদল ও মিটফোর্ড হাসপাতালের ডা. রওনক জামিল পিয়াস ও ডা.হাছিবুল ইসলাম এই তিন চিকিৎসকের দেহ থেকে বিশেষ যন্ত্রের মাধ্যমে নেওয়া হবে প্লাজমা।

ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মাজহারুল হক তপন বলেন, এমন না যে প্লাজমার চিকিৎসা পদ্ধতি চালু হয়েছে! এখনো আমরা রিসার্চ করছি। কার শরীরে কতটুকু এন্টিবডি আছে তা দেখা হবে।